২৭ নারীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক, ভুয়া এএসপি আটক

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পু’লিশ সুপারের নাম ব্যবহার করে ভু’য়া অ্যাকাউন্ট খুলে প্র’তারণার অ’ভিযোগে বরগুনায় মোস্তাফিজুর রহমান বাদল নামের এক ব্যক্তিকে আ’টক করেছে পু’লিশ।

তার বি’রুদ্ধে ভু’য়া ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে ২৭জন নারীর সঙ্গে অ’নৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের অ’ভিযোগ রয়েছে। শনিবার রাত আটটার দিকে বরগুনা পৌর শহরের কাঠপট্টি এলাকা থেকে তাকে আ’টক করা হয়। মোস্তাফিজুর রহমান বাদলের বাড়ি বরগুনা সদর উপজে’লার ঢলুয়া ইউনিয়নের চরকগাছিয়া এলাকায়।

তিনি ওই এলাকার মজিদ দফাদারের ছেলে। কাঠপট্টি এলাকায় তার ফার্মেসির ব্যবসা রয়েছে। বরগুনা থা’না-পু’লিশ সূত্রে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার আবু সাঈদের সঙ্গে বাদলের চেহারার কিছুটা মিল আছে। এ সুযোগ নিয়ে আবু সাইদ নাম ব্যবহার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার পরিচয়ে আ’টক ব্যক্তি একটি ফেসবুক আইডি ব্যবহার করে আসছেন।

সম্প্রতি বিষয়টি পু’লিশ সুপার আবু সাঈদের নজরে আসে। তিনি তথ্য প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে বাদল এ কাজটি করে আসছে নিশ্চিত হয়ে বরগুনা পু’লিশকে বিষয়টি জানান। শনিবার রাত আটটার দিকে অ’ভিযান চালিয়ে নিজের ওষুধের দোকান থেকে তাকে আ’টক করা হয়।

বরগুনা থা’না ভারপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা তরিকুল ই’সলাম অরুণ বলেন, প্রতা’রক বাদল অতিরিক্ত এসপি পরিচয়ে অন্তত ২৭ জন নারীর সঙ্গে ফেসবুকে অ’নৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং মেসেঞ্জারে আ’পত্তিকর ছবি ভিডিও আদান প্রদান করে। তাকে রবিবার আ’দালতে সোপর্দ করা হবে।

যোগাযোগ করা হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পু’লিশ সুপার আবু সাইদ মুঠোফোনে বলেন, বিষয়টি আমার নজরে আসলে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আমি ওই ব্যক্তি ও অবস্থান নিশ্চিত হই। বিষয়টি আমি বরগুনা পু’লিশকে অবহিত করে তাদের সহায়তা চেয়েছিলাম।

তার বি’রুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিধিমোতাবেক মা’মলা দা’য়ের করা হবে। এর আগে গত ২৯ আগস্ট ভু’য়া জ্বালানি সচিব পরিচয়দানকারী সাইফুল মাহমুদ দুলাল নামের এক ব্যক্তিকে আট’ক করেছিল বরগুনা পু’লিশ।