স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণ ও স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি লুটপাটের বিচার দাবি

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের অপসারণ ও স্বাস্থ্যখাতসহ সব খাতের দুর্নীতি লুটপাটের বিচার দাবিতে যশোরে বিক্ষোভ অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে করোনা দুর্যোগ উত্তরণে গণকমিটি।

সোমবার (২৭ জুলাই) দুপুরে যশোর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এ কর্মসূচি পালন করেন তারা।

একইসাথে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল অবিলম্বে চালু, মেডিকেল কলেজ ও যশোর জেনারেল হাসপাতালের সাপ্লাইকৃত মালের তালিকা জনসম্মুখে প্রকাশ, প্রতিটি ইউনিয়নে স্বাস্থ্য ক্লিনিকে করোনা ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ ও পূর্ণাঙ্গ স্বাস্থ্যকেন্দ্র চালুর দাবি জানানো হয়।

কর্মসূচি চলাকালে বক্তব্য রাখেন, গণকমিটির নেতা ও ওয়াকার্স পাটির্র (মার্কসবাদী) সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবীর জাহিদ, গণকমিটির যুগ্ম আহবায়ক হাসিনুর রহমান, কমিটির নেতা চুন্নু সিদ্দিকী, মাহবুবুর রহমান মজনু, জিল্লুর রহমান ভিটু, হারুন-অর-রশীদ প্রমুখ।

বিক্ষোভ অবস্থানে নেতারা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণ দাবি করে বলেন, নিজে উপস্থিত থেকে প্রতারক শাহেদের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করলেও স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন তিনি কিছু জানেন না। তাহলে কি আমাদের মন্ত্রীরা লেখাপড়া জানেন না। তাহলে উনাদের দায়িত্ব কি? ওনারা না দেখেশুনে টিপ সই দেন।

নেতারা বলেন, আওয়ামী লীগের নেতারা দাবি করেন করোনা তাদের কাছে কিছু না। অথচ করোনা টেস্টের কোন ব্যবস্থা নেই। মানুষ দ্বারে দ্বারে ঘুরছে টেস্ট করানোর জন্য কিন্তু সেটি করাতে পারছেন না।

এমন অবস্থায় হটাৎ করে বলা হলো করোনা টেস্ট করাতে হলে টাকা লাগবে। বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে মানুষ চিকিৎসা পাচ্ছেন না। সাহস করে যেতেও পারছে না। যারা যাচ্ছে তারা নানা বিড়ম্বনায় পড়ছেন। তাই এসব অব্যবস্থার অবসান করতে হবে ও দেশ বাঁচাতে অবিলম্বে সব দুর্নীতির বিচারের পাশাপাশি ও অযোগ্য স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অপসারণ ও বিচার করতে হবে।