সেবা দিতে গিয়ে চিকিৎসক দম্পতি করোনায় আক্রান্ত

সেবা দিতে গিয়ে রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় চিকিৎসক দম্পতি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। ওই দম্পতি নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।

করোনা আক্রান্ত ডা. আক্তারুজ্জামান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা একং তার স্ত্রী কান্তাও একই হাসপাতালের চিকিৎসক। তবে ডা. কান্তা অন্তঃসত্ত্বা।

সোমবার ডা. কান্তা বলেন, কয়েক দিন ধরে জ্বর। গলাব্যথাও ছিল। স্বামী ডা. আক্তারেরও সর্দি-কাশি ছিল। শুরুতে বিষয়টি নিয়ে খুব একটা না ভাবলেও পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় করোনা পরীক্ষা করার।

পরীক্ষা শেষে জানতে পারি আমরা স্বামী-স্ত্রী দুজনেই করোনা পজিটিভ। পাশাপাশি আমার ছোট বোন নাহিদ রূপার করোনা পজিটিভ। তবে দেড় বছরের প্রথম সন্তান আহান জাহান আক্রান্ত হয়নি।

এদিকে করোনাভাইরাস পরীক্ষার প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর ডা. আক্তারুজ্জামান বলেন, যখনই পৃথিবীতে কোনো নেতিবাচক বিষয়ের মুখোমুখি হই, একজন মানুষের সামনে যাই– সে আমার স্ত্রী কান্তা। ও আলো ছড়িয়ে সব কিছু ইতিবাচক করে দেয়।

এই প্রথম আমরা দুজন একসঙ্গে কোনো কিছুতে পজিটিভ হলাম।

আমাদের দুজনেরই করোনা পরীক্ষার ফল পজিটিভ এসেছে। আমাদের নিয়ে সৃষ্টিকর্তার নিশ্চয় কোনো পরিকল্পনা আছে। তারা দুজনেই মানসিকভাবে বেশ শক্ত আছেন। নিজ বাসাতেই আছেন। মেনে চলছেন সব পরামর্শ।

ডা. কান্তা বলেন, আমরা করোনার শুরু থেকে সাবধানতা মেনে কাজ করেছি। প্রয়োজন ছাড়া হাসপাতালের বাইরে কোথাও যাইনি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলেছি। হাসপাতালে মানুষকে সেবা দিতে গিয়ে হয়তো ওখান থেকে কিছু হয়েছে।

রোববার জানতে পারি করোনা পরীক্ষার ফল পজিটিভ। আমরা দুজনেই আইসোলেশনে আছি। দেড় বছরের শিশুকে নিয়ে একসঙ্গে আছি।

তবে মানসিকভাবে আমরা দুজনেই ভীষণ শক্ত আছি। কিন্তু একটিই চিন্তায় রয়েছে– দ্বিতীয় সন্তান প্রসব হবে চলতি সপ্তাহে।