সেনা প্রত্যাহার না করলে মার্কিন স্বার্থে আঘাত: ইরাকি প্রতিরোধ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি

ইরাকের প্রতিরোধকামী সংগঠনগুলোর জোট পপুলার মোবিলাইজেশন ইউনিট হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহার করা না হলে মার্কিন স্বার্থে আঘাত হানবে তারা।

ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল-কাজেমি যখন আমেরিকা সফর করছেন এবং ইরাকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করার ব্যাপারে ওয়াশিংটনের সঙ্গে কোনো সমঝোতায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছেন তখন প্রতিরোধকামী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে এই হুঁশিয়ারি দেয়া হলো। লেবাননের টেলিভিশন চ্যানেল এ খবর দিয়েছে।

প্রতিরোধকারী সংগঠনগুলো বলেছে, “যদি ইরাকের ভূমি থেকে মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহারের ব্যাপারে ওয়াশিংটন চুক্তিতে পৌঁছাতে ব্যর্থ হয় তাহলে আমরা ইরাকের ভেতরে মার্কিন স্বার্থে আঘাত হানার অধিকার রাখি। আমরা আশা করি, প্রধানমন্ত্রী কাজেমি ইরাকের ভেতর মার্কিন ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের নতুন কোন পরিকল্পনা নিয়ে দেশে ফিরবেন না।”

পপুলার মোবিলাইজেশন ইউনিট ইরাক থেকে মার্কিন সেনা বহিষ্কারের বিষয়টিকে সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে থাকে এবং তারা মনে করে এ বিষয়টি সরকারের কাছেও সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত। গত জানুয়ারি মাসে ইরাকের জাতীয় সংসদ দেশ থেকে মার্কিন সেনা ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে সর্বসম্মতভাবে একটি প্রস্তাব পাস করেছে।

ইরানের ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি’র কুদস ফোর্সের তৎকালীন কমান্ডার লেফটেনেন্ট জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে ইরাকের মাটিতে মার্কিন সেনারা হত্যা করার পর ইরাকের জাতীয় সংসদ ওই প্রস্তাব পাস করে। মার্কিন হামলায় ইরাকের পপুলার মোবিলাইজেশন ইউনিটের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহদি আল-মুহান্দিস নিহত হন।