সংসদ উপনেতার বাড়িতে থেকে ইয়াবা ব্যবসা!

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার রসুলপুর গ্রামে সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর বাড়িতে অবস্থান করেই মাদক কারবারীরা ইয়াবার কারবার চালাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সম্প্রতি এই চক্রের এক মাদক বিক্রেতাকে ইয়াবাসহ আটকের পর ক্ষমতাশালী মহলের তদবিরে তাকে ছাড়িয়ে নেয়া হয় বলে অভিযোগও উঠেছে।

সালথা থানার এএসআই ইমেজুলের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের একটি দল গত মঙ্গলবার সন্ধায় এ অভিযান চালায়। তবে পুলিশ দাবি করছে, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে অভিযান চালিয়ে একজনকে আটক করার পরে বডি সার্চের সময় ওই ব্যক্তি পালিয়ে যায়।

জানা গেছে, মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে কানইর গ্রামের হারুনের ছেলে পান্নুর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে পুলিশ সদস্যরা কৌশলে ১০০ পিস ইয়াবা কিনতে চায়। এসময় পান্নু তাদেরকে উপনেতার বাড়ির পুকুর ঘাটলায় যেতে বলে। কথামতো পুলিশ সদস্যরা সেখানে যেয়ে ইয়াবা হস্তান্তরের সময় পান্নুকে আটক করে।

এদিকে উদ্ভুত পরিস্থিতিতে সেখানে পান্নুর সহযোগী পারভেজসহ অন্যরা ছুটে এসে পুলিশের সাথে তর্কাতর্কি ও ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়ে। অভিযোগ রয়েছে, এসময় ক্ষমতাসীন নেতৃবৃন্দের সাথে মোবাইলে পুলিশকে কথাও বলিয়ে দেয় পারভেজ। এরপর পুলিশ তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। ধস্তাধস্তিতে পান্নুর হাতে দাগ পড়ে যায়।

এ ব্যাপারে সালথা থানার ওসি মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, সেখানে মাদক বিক্রি হচ্ছে এমন খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে একজনকে গ্রেফতার করে। তবে বডি সার্চ করার সময় তিনি পালিয়ে যান। বিষয়টি পুলিশের নজরে আছে।

ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে জোর চেষ্টা চলছে। সংসদ উপনেতার বাড়ি ব্যবহার করে মাদক ব্যবসার এই চিত্র প্রকাশ হওয়ার পর স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের পাশাপাশি আতঙ্ক ও নিরাপত্তাহীনতা বিরাজ করছে।

সূত্র মতে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে সংসদ উপনেতার বাড়িকে নিরাপদ ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করে আব্দুর রহমান নামে একজন মাদক ডিলারের নেতৃত্বে দীর্ঘ দিনযাবত এই মাদক ব্যবসা পরিচালিত হচ্ছে। তাদেরকে প্রভাবশালীরা শেল্টার দিয়ে থাকে।