শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেই ফিরছেন সাকিব!

সেই গত বছর অক্টোবরের শেষ দিনটা থেকে দিন গোনা শুরু হয়েছে। অবশেষে শেষ হতে চলেছে অপেক্ষার পালা। আগামী ২৯ অক্টোবর শেষ হচ্ছে সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞা।

হিসাব বলছে, সেই সময়ে শ্রীলঙ্কা সফরে থাকবে বাংলাদেশ। আর সব ঠিক থাকলে হয়তো এই সফরেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরবেন বিশ্বের অন্যতম সেরা এই অলরাউন্ডার। আর বিকেএসপিতে সেপ্টেম্বরের শুরুতেই সাকিব এই প্রত্যাবর্তনের প্রস্তুতি শুরু করবেন।

বাজিকরের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েও সেটা যথোপযুক্ত কর্তৃপক্ষকে না জানানোয় গত বছর অক্টোবরে দুই বছরের জন্য সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হন দেশের সেরা এই অলরাউন্ডার। এর মধ্যে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত। ফলে এ বছরই ২৯ অক্টোবরের পর ফিরতে পারছেন তিনি ক্রিকেটে।

সাকিব আল হাসান যে ফেরার জোর চেষ্টা করছেন, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র সফরে থাকা সাকিব সেপ্টেম্বরের শুরু থেকে বিকেএসপিতে ব্যক্তিগতভাবে অনুশীলন করবেন।

চলতি মাসের শেষেই তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরে আসবেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এই অনুশীলনে তাকে সহায়তা করবেন তার পুরোনো শিক্ষক নাজমুল আবেদীন ফাহিম। এই ক্রিকেট গুরু নিজেই নিশ্চিত করেছেন সাকিবের এই অনুশীলনের ব্যাপারটা, ‘আমরা ফিটনেস ট্রেনিং দিয়ে শুরু করব। তারপর ধাপে ধাপে স্কিল ট্রেনিংয়ে ঢুকব। ও অনেক দিন বাইরে ছিল। ফলে ওকে মানানোর সুযোগ দিতে হবে।’

সাকিবের বড় ব্যাপারটা হলো দীর্ঘদিন ক্রিকেটের সঙ্গে না থাকা। তবে কোচ রাসেল ডমিঙ্গো ক্রিকইনফোর সঙ্গে আলাপ করতে গিয়ে বলেছেন, করোনার কারণে অন্য ক্রিকেটারদের সঙ্গে তেমন কোনো পার্থক্য নেই সাকিবের, ‘স্কোয়াডের বাকিরা ছয়-সাত মাস বাইরে থাকায় তাদের সঙ্গে আর সাকিবের খুব একটা পার্থক্য আছে বলে আমি মনে করি না। আমরা আশা করি যে, সব খেলোয়াড় ফিট থাকবে এবং সবাই ফিটনেস লেভেলের হিসাবে নিজেদের সর্বোচ্চ মানে রাখতে পারবে।’

সাকিব এই টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়েই ফিরতে পারবেন কি না, সেটা নিয়ে অবশ্য বিসিবি খুব নিশ্চিত নয়। বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্সের চেয়ারম্যান আকরাম খান বলছিলেন, এটা আসলে বেশ কিছু ব্যাপারের ওপর নির্ভর করে।

ও কেমন ফিট আছে বা কেমন থাকতে পারে ঐ সময়, সেটা দেখতে হবে। ২৯ অক্টোবরের আগে ও জাতীয় দলের সঙ্গে কোনো কার্যক্রমে যুক্ত হতে পারছে না। ফলে ওর ম্যাচ ফিটনেস ফিরে পাওয়াটা কঠিন হবে। আমরা কোচ ও নির্বাচকদের সঙ্গে আলাপ করে সিদ্ধান্ত নেব।’

ডমিঙ্গো প্রায় একই সুরে কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন, ফিরতে হলে তার আগে সাকিবকে কিছু অনুশীলন করতে হবে, ‘ওকে নিশ্চিত করতে হবে যে, ও এর আগে কিছু বল পেটাতে পেরেছে এবং কিছু বল করতে পেরেছে। আমরা যখন শ্রীলঙ্কায় যাওয়ার আগে একত্রিত হবো, তখন আসলে সিদ্ধান্তটা নিতে পারব।’