শিপ্রা পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করতে কক্সবাজারে ,মামলা নেননি ওসি

স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও পুলিশের গুলিতে নিহত মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খানের ক্রু সদস্য শিপ্রা দেবনাথ গতকাল মঙ্গলবার রাতে কক্সবাজার থানা যান দুই পুলিশ সুপার এবং আরও দেড় শতাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করতে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার ব্যক্তিগত ছবি প্রকাশের অভিযোগে এই মামলা করতে যান তিনি।

শিপ্রার আইনজীবী মাহবুবুল আলম টিপু গণমাধ্যমকে জানান, কক্সবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামলাটি না নিয়ে শিপ্রাকে পরামর্শ দিয়েছেন রামু থানায় কিংবা সাইবার-অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলা করতে।

এই আইনজীবী আরও জানান, শিপ্রার মামলায় অভিযোগ আনা হবে সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান এবং পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (ঢাকা মেট্রো- দক্ষিণ) পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান শেলিসহ আরও ১০০ থেকে ১৫০ জনের বিরুদ্ধে।

তিনি বলেন, শিপ্রার ব্যক্তিগত ছবি আপত্তিকরভাবে সম্পাদনা করে তা ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করা হয়েছে। এতে করে শিপ্রার মানহানি হয়েছে বলে তিনি মনে করেন। তাই ডিএসএ-র ১৯, ২৫ এবং ২৯ ধারায় এই মামলা করতে এসেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘ওসির কাছে বিষয়টি জানানোর সঙ্গে সঙ্গে তিনি পরামর্শ দেন, ঘটনাটি হিমছড়িতে হয়েছে, তাই আমাদের উচিৎ রামু থানায় মামলা দায়ের করা। আমাদের ধারণা ছিল, শিপ্রা কক্সবাজার থানায় মামলা করতে পারবেন। কারণ, এগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী ভাইরাল হয়েছে এবং তিনি (শিপ্রা) এখন রয়েছেন কক্সবাজারের জল তরঙ্গ রিসোর্টে।’

তিনি আরও যোগ করেন, ‘এছাড়াও ওসি আমাদের পরামর্শ দেন, আমরা একটি ট্রাইব্যুনালে মামলাটি দায়ের করতে পারি।’

শিপ্রা এবং স্ট্যামফোর্ডের আরেক শিক্ষার্থী সিফাত সেখানে উপস্থিত থাকলেও গণমাধ্যমকর্মীরা তাদের সঙ্গে কথা বলতে পারেননি। রাত সাড়ে এগারোটার দিকে তারা থানায় যান।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য কক্সবাজার থানার ওসি খায়রুজ্জামানকে একাধিক চেষ্টা করেও ফোনে পাওয়া যায়নি।

এর আগে, গত সোমবার এক ভিডিও বার্তায় এই মামলা করার বিষয়টি সকলকে জানিয়েছিলেন শিপ্রা।