মিয়ানমারে জ্বালিয়ে দেওয়া হলো একটি গ্রাম; গ্রামবাসী বলছে সেনাবাহিনী জড়িত

মিয়ানমারের একটি গ্রাম আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সূত্রগুলো বলছে, দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে স্থানীয় গেরিলাদের সংঘর্ষের পর মধ্যাঞ্চলের ঐ গ্রামটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়। এই ঘটনায় অন্তত দুই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।

পুড়িয়ে দেওয়া গ্রামটির নাম কিন মা। গ্রামটি মাগওয়ে অঞ্চলে অবস্থিত। গ্রামটির বাসিন্দারা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন,মঙ্গলবার সেনাবাহিনীর সদস্যরা ২৪০টির মধ্যে ২০০টি ঘরই ধ্বংস করেছেন। গ্রামবাসীর ভাষ্য,মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন জান্তাবিরোধী গেরিলাদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ হয়। এই সংঘর্ষের পরই গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। গ্রামটির একাধিক বয়স্ক অধিবাসীকে হত্যা করা হয়েছে বলেও বিভিন্ন সূত্র দাবি করেছে।

এদিকে মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন সরকারি সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়ার সঙ্গে সন্ত্রাসীরা জড়িত। তাদের দাবি, ইচ্ছাকৃতভাবে সেনাবাহিনীর সুনাম নষ্টের চেষ্টা চলছে। এ কারণে এর সঙ্গে সেনাবাহিনীকে জড়ানো হচ্ছে।

মিয়ানমারে গত বছরের নভেম্বরের সাধারণ নির্বাচনে কথিত জালিয়াতির অজুহাত তুলে দেশটির সেনাবাহিনী গত ১ ফেব্রুয়ারি সামরিক অভ্যুত্থান করে। তারা অং সান সু চির নির্বাচিত সরকার উৎখাতের মাধ্যমে দেশটির ক্ষমতা দখল করে। একই সঙ্গে সু চিসহ দেশটির রাজনৈতিক ও গণতন্ত্রপন্থীদের গ্রেপ্তার করে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারি করে।

সেনা অভ্যুত্থানের পরপরই দেশটির গণতন্ত্রপন্থীরা বিক্ষোভ শুরু করেন। এছাড়া এরপর থেকে বিভিন্ন এলাকায় সশস্ত্র গেরিলা তৎপরতাও বেড়েছে।

সূএঃ পার্সটুডে