মিতু হত্যা মামলার এক আসামির ২ দিনের রিমান্ড

চট্টগ্রামের সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় শাহজাহান মিয়া নামে এক আসামির দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রোববার চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফিউদ্দীনের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একই আদেশে আদালত ওই মামলার আসামি মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিম ও আনোয়ার হোসেনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন।

মিতু হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চট্টগ্রাম মেট্রোর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মঈন উদ্দিন তিন আসামির পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত শুনানি শেষে এ আদেশ দেন।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী শাহাবুদ্দীন আহমেদ  বলেন, মামলার তদন্ত কর্মকর্তার পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এক আসামিকে দুই দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন এবং অপর দুই আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন আদালত।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে নগরীর জিইসি মোড় এলাকায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতুকে। এ ঘটনায় বাবুল আক্তার বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে পাঁচলাইশ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এ মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে এহতেশামুল হক ভোলা, শাহজামান ওরফে রবিন, মো. মনির, আবু নসুর গুন্নু, শাহজাহান, মো. আনোয়ার, সাইদুল আলম শিকদার ওরফে সাক্কু ও মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিমকে আটক করে পুলিশ।

এর মধ্যে এ হত্যাকাণ্ডে অস্ত্র সরবরাহকারী হিসেবে আটক হন এহতেশামুল হক ভোলা ও তার সহযোগী মো. মনির। তাদের কাছ থেকে মিতু হত্যায় ব্যবহৃত পয়েন্ট ৩২ বোরের একটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়।

মিতু হত্যায় দায়ের করা মামলাটি প্রথমে তদন্ত করেন পাঁচলাইশ থানা পুলিশ। এরপর মামলাটি যায় সিএমপির গোয়েন্দা পুলিশের কাছে। পুলিশের এ সংস্থাটি দীর্ঘ চার বছরেও চাঞ্চল্যকর এই মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ করতে না পারায় সম্প্রতি মামলাটি আদালতের নির্দেশে পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়।