মার্কিন দখলদারিত্ব শেষ, আফগানিস্তান এখন আর যুদ্ধক্ষেত্র নয়

তালেবান বলেছে, আফগানিস্তানের ওপর মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক বাহিনীর ২০ বছরের দখলদারিত্বের অবসান হয়েছে এবং এদেশে কেউ এখন আর যুদ্ধ চায় না। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখল করার পর গতকাল (মঙ্গলবার) প্রথম আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে তালেবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ এ কথা বলেছেন।

২০ বছরের দখলদারিত্ব থেকে মুক্ত হওয়ায় আফগান জনগণকে তিনি অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, মুক্তি এবং স্বাধীনতা প্রতিটি জাতির বৈধ অধিকার।

জবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, “২০ বছর সংগ্রামের পর আমরা আফগানিস্তান মুক্ত করতে সক্ষম হয়েছি এবং বিদেশীদেরকে থেকে বহিষ্কার করেছি। আমরা ভেতরের কিংবা বাইরের কোন শত্রু চাই না। আমরা এটি নিশ্চিত করতে চাই যে, আফগানিস্তান এখন আর কোনো যুদ্ধক্ষেত্র নয়। আমাদের বিরুদ্ধে যারা যুদ্ধ করেছে তাদের সবাইকে ক্ষমা করে দিয়েছি। শত্রুতার অবসান হয়েছে।

তালেবান মুখপাত্র জোর দিয়ে বলেন, “আফগানিস্তানে অবস্থিত সমস্ত বিদেশি দূতাবাস ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। দূতাবাসগুলোর নিরাপত্তা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

জবিউল্লাহ মুজাহিদ আরো বলেন, তালেবান শিগগিরই একটি অংশগ্রহণমূলক সরকার গঠন করবে। পাশাপাশি তিনি প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের প্রতিশ্রুতিও ব্যক্ত করেন।

তালেবান মুখপাত্র বলেন, তারা সাবেক সেনা এবং পশ্চিমা সমর্থিত সরকার কারো বিরুদ্ধেই প্রতিশোধ নিতে চান না। তালেবানের কোনো সদস্য কারো দরজায় কড়া নেড়ে বলবে না যে তারা কার হয়ে কাজ করেছে। আফগানিস্তানের নাগরিকরা নিরাপদে বসবাস করবে। তাদেরকে কেউ জিজ্ঞাসাবাদ করতে যাবে না।

জবিউল্লাহ মুজাহিদ সাংবাদিকদের বলেন, “আমেরিকাসহ আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এই নিশ্চয়তা দিচ্ছি যে, কোনো দেশের ওপর হামলার জন্য আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করতে দেয়া হবে না। ফলে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। বিশ্ববাসী আশ্বস্ত হতে পারে যে, আমরা এই নীতি-আদর্শের বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকব এবং আপনারা কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, “নারীদের অধিকার সংরক্ষণ করা হবে। তারা আমাদের অবকাঠামোর মধ্যে থেকে কাজ এবং লেখাপড়া করতে পারবেন। নারীরা আমাদের সমাজে অনেক বেশি সক্রিয় হতে যাচ্ছেন।

গণমাধ্যম সম্পর্কে জবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেছেন, তালেবান চায় বেসরকারি গণমাধ্যমগুলো স্বাধীন থাকবে তবে জাতীয় মূল্যবোধের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের কাজ করা উচিত হবে না। তিনি বলেন, “গণমাধ্যমের উচিত হবে আমাদের সীমাবদ্ধতা ধরিয়ে দেয়া যাতে আমরা দেশের সেবা করতে পারি। আমাদের বিরুদ্ধে কাজ করা তাদের উচিত হবে না। জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠার জন্য তাদের কাজ করা উচিত।

সূত্রঃ পার্সটুডে