মানুষের জীবন-জীবিকার তাগিদে লকডাউন শিথিল : আইনমন্ত্রী

আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘করোনাভাইরাস মোকাবেলা কঠিন হয়ে যাচ্ছে। একমাত্র আল্লাহই পারেন এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ দিতে। তাই আমরা ইমামদের মাধ্যমে আল্লাহর কাছে পানাহ চাইবে যেন তিনি আমাদেরকে পরিত্রাণ দেন।’

আজ শনিবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় ইমামদের সঙ্গে ভার্চুয়্যাল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। করোনাভাইরাস বিষয়ে সচেতনতামূলক আলোচনার জন্য উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ইমামদেরকে ডাকা হয়। মন্ত্রী ঢাকা থেকে এ আলোচনায় অংশ নেন।

মন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে মানুষের জীবন-জীবিকার মধ্যে বিরাট চাপ পড়ছে। সরকার জনগণের সেবার জন্য, জনগণ যাতে ভালোভাবে থাকে সেজন্য জনগণকে সময়ে সময়ে ঘরে রাখতে হয়। আবার জনগণের জীবিকার জন্যেও সরকারকে সচেষ্ট থাকতে হয়, সচেতন থাকতে হয়। জীবন, জীবিকার মধ্যে ব্যালেন্স আনা সরকারের কাজ। তার সেটা করতে গিয়েই লকডাউন বিষয়ে প্রয়োজনমাফিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, ‘শেখ হাসিনার সাহসিকতায় আমরা করোনার বড় ধরণের প্রভাব থেকে রক্ষা পেয়েছি। বড় বড় রাষ্ট্র যখন করোনার টিকার ব্যবস্থা করেছে ঠিক তখনই শেখ হাসিনা আমাদের জন্য ঠিকা কিনে এনেছেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আখাউড়া পৌরসভার মেয়র মো. তাকজিল খলিফা কাজল, আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুমানা আক্তার, মহিউস সুন্নাহ মাদরাসার প্রিন্সপাল আসাদ আল হাবিব, খড়মপুর শাহ্পীর কল্লা শহীদ দাখিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি কেফায়েত উল্লাহ, ইমাম সমিতির সভাপতি কাজি মাঈনুদ্দিন।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবুল কাশেম ভূঁইয়া, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. সাইফুল ইসলাম, আখাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মিজানুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. আব্দুল মমিন বাবুল, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো. মুরাদ হোসেন, সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান নাসরিন শফিক আলেয়া আলেয়া, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো. শাহবুদ্দিন বেগ শাপলু প্রমুখ।

আলোচনাকালে ইমামদের পক্ষ থেকে মন্ত্রীর কাছে বিভিন্ন দাবি তুলে ধরা হয়। এর মধ্যে ইমামদের বেতন ভাতার দাবি প্রধানমন্ত্রীকে জানানো হবে বলে জানান মন্ত্রী। বাকি দাবিগুলো মন্ত্রী পরবর্তীতে আলোচনা করে ব্যবস্থা নিবেন বলে আশ্বাস দেন।

এ সময় মেয়র তাকজিল খলিফা বলেন, ‘মন্ত্রী মহোদয় সব সময়ই আলেম ওলামাদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা গড়ে তুলতে এ আয়োজন করা হয়েছে।’