মসজিদুল হারামে জমজমের পানি বিতরণে রোবট চালু

কভিড-১৯ মহামমারি সংক্রমণ রোধে মক্কার পবিত্র মসজিদুল হারামে জমজম পানির রোবট চালু করা হয়েছে। আজ রবিবার (১৩ জুন) মসজিদুল হারামের প্রধান ইমাম ও খতিব ড. আবদুর রহমান আল সুদাইস তা উদ্বোধন করেন।

মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গুরুত্বারোপ থেকে করোনা সংক্রমণ রোধে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। কারো সরাসরি সহয়তা ছাড়াই রোবটের মাধ্যমে মক্কা ও মদিনার পবিত্র দুই মসজিদে জমজম পানি বিতরণ করা হবে।

এর আগে পবিত্র মসজিদুল হারামে জীবাণুমুক্ত রাখতে ১০টি অত্যাধুনিক রোবট চালু করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। করোনা সংক্রমণ রোধে স্বয়ংক্রিয় যন্ত্র ব্যবহারের সাহায্যে মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার ব্যবস্থা নেওয়া হয়। অত্যাধুনকি এ রোবটের সাহায্যে একাধারে ৫-৮ ঘণ্টা জীবাণুমুক্ত রাখার কাজ করা যাবে।

জমজম মক্কার মসজিদুল হারামের কাছে অবস্থিত একটি প্রসিদ্ধ কূপ। পবিত্র কাবা থেকে এই কূপের মধ্যে মাত্র ৩৮ গজের দূরত্ব। হজ ও ওমরা আদায়কারী এবং সব মুসলিমদের জন্য সাধারণভাবে জমজমের পানি পান করা মুস্তাহাব। হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, নবী করিম (সা.) জমজম থেকে পানি পান করেছেন।

আবদুল্লাহ বিন আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, ‌‌‘জমজমের পানি ভূপৃষ্ঠের সর্বোৎকৃষ্ট পানি। তা খাবার হিসেবে ক্ষুধা নিবারণ করে ও রোগ-ব্যাধী নিরাময়ে কাজ করে।’ (তাবারানি, হাদিস নং : ১১১৬৭)

আবু জর (রা.) বর্ণনা করেন, নবী করিম (সা.) বলেছেন, ‘জমজমের পানি বরকতময়, তা খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস নং : ১৯২২)

সূত্র : রিয়াদ ডেইলি