ভারতের দাবি বাংলাদেশই বলেছিলো পুরোনো রেল ইঞ্জিন দিতে

ভারত সরকারের কমকর্তারা দাবি করছেন বাংলাদেশকে উপহার দেয়া ১০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভই পুরাতন, তবে ভালো অবস্থায় আছে। সূত্রগুলো বলছে, ২০১৯ এর অক্টোবরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় এগুলো দেবার কথা দিয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভারত সরকারের একাধিক সূত্রের মতে, বাংলাদেশই এই লোকোমোটিভগুলো চেয়েছিলো ভাড়া হিসেবে। পরে ভারত তা উপহার দেবার সিদ্ধান্ত নেয়। এই লোকোগুলো ২০১২ ও ১৫ সালে কমিশন করা হয়। সূত্রগুলোর দাবি, তাড়াতাড়ি ইঞ্জিন পেতে বাংলাদেশই বলেছিলো যেনো সেকেন্ড হ্যান্ড লোকোমোটিভই দেয়া হয়।

বাংলাদেশের জরুরীভিত্তিতে ইঞ্জিনের প্রয়োজন ছিলো কারণ রেলওয়ের ৭২ শতাংশ লোকোমোটিভই অতি পুরাতন। এ কারণেই জরুরীভিত্তিতে লোকোমোটিভই চেয়েছিলো বাংলাদেশ।

অবশ্য ঢাকার একটি সূত্র  বলছে, ভাড়া হিসেবে বাংলাদেশ চেয়েছিলো এই লোকোমোটিভগুলো। তবে উপহার দেয়ার হঠাৎ সিদ্ধান্তের পর প্রথমে অবাক হলেও পরে পুরোনো রেল ইঞ্জন দেখে অপমানিত বোধ করে তোপখানা রোড। সচিবালয়ের একটি সূত্র প্রিন্টকে জানিয়েছে, বাংলাদেশ কখনই পুরোনো ইঞ্জিন উপহার হিসেবে চায়নি।