ভারতের দাবি করা ভূখণ্ডে কাঁটাতারের বেড়া দিচ্ছে নেপালিরা

ভারতকে পাত্তা না দিয়ে এবার উত্তরাখণ্ডের ‘নো ম্যানস ল্যান্ড’-এ অবকাঠামো নির্মাণ শুরু করেছে নেপালিরা। নো ম্যানস ল্যান্ডের ১০০-১৫০ মিটারের ওই এলাকাটি নিজেদের দাবি করে তারা ভারত-বিরোধী স্লোগানও তুলেছে।

তনকপুরের এক প্রশাসনিক কর্মকর্তা বলেছেন, ওই বিতর্কিত জায়গাটি কার এবং সীমান্ত নির্ধারণের জন্য ভারত ও নেপালের যৌথ দল গঠন করা হয়েছিল। এলাকায় জরিপ পরিচালনার কথা ছিল সেই দলের। তবে করোনাভাইরাস মহামারির প্রকোপে সেই পরিকল্পনা স্থগিত হয়ে যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এমন পরিস্থিতিতে গত ২২ জুলাই (বুধবার) কাঁটাতার লাগানোর জন্য ‘নো ম্যানস ল্যান্ড’-এ ১৫-১৮ টি কাঠামো পুঁতে দেয় নেপাল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় ভারতীয় কর্মকর্তারা। তবে নেপালের বাসিন্দারা উত্তেজিত হয়ে পড়ে। তারা ভারতবিরোধী স্লোগান দিতে শুরু করে। উত্তেজনা প্রশমনে পরে দু’দেশের সীমান্ত সুরক্ষা বাহিনীর কর্মকর্তারা বৈঠকে বসেন।

তনকপুরের মহকুমা শাসক দয়ানন্দ সরস্বতী জানান, কাঠামো লাগানোর খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যান সশস্ত্র সীমা বলের (এসএসবি) কর্মকর্তারা। খবর দেওয়া হয় জেলা প্রশাসনকে। মহকুমা শাসক বলেন, ‘চম্পাবত জেলার তনকপুর ব্যারেজ এবং ৮১১ পিলারের কাছে কয়েকটি কাঠামো বানিয়ে নেপালের বাসিন্দারা নো ম্যানস ল্যান্ডে জবরদখল করেছে বলে দেখা যায় এবং নিজেদের এলাকা বলে দাবি করে। ওই এলাকাটি নেপালের ব্রক্ষ্মদেব এলাকার কাছে। যেখানে একটি ছোটো বাজার আছে।’

এসএসবি কমান্ড্যান্ট আর কে ত্রিপাঠী জানিয়েছেন, কাঠামোগুলি স্থায়ী নয়। সেগুলো সাধারণ কংক্রিট এবং কাঠের। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সেগুলো তুলে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে নেপালের সশস্ত্র বাহিনী। যদিও বৈঠকে উপস্থিত এক এসএসবি কর্মকর্তা জানান, মুখে কাঠামো সরিয়ে নেওয়ার কথা বললেও আদতে কোনো কাজ করা হয়নি। শুক্রবারও নেপালের লোকজনদের পিলারের উপর কাঁটাতার বসাতে দেখা গেছে।