বিশ্বকে তাক লাগিয়ে সর্ববৃহৎ বিধ্বংসী রোবট ট্যাংক আনছে রাশিয়া

রাশিয়ার বিশ্ববিখ্যাত বন্দুক নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান কালাশনিকভ এবারে রুশ সেনাবাহিনীর জন্য ২০ টন ওজনের বিশ্বের সর্ববৃহৎ রোবট ট্যাংক তৈরি করবে। শুধু তাই নয়, যুদ্ধের ময়দানে যাতে শত্রুপক্ষ রাশিয়াকে ভয় পায়, সে জন্যে যুদ্ধে ব্যবহার উপযোগী সাত টন ওজনের বিধ্বংসী রোবট গাড়িও তৈরি করছে তারা।

সংস্থাটির দাবি, এটাই বিশ্বের সব থেকে বড় রোবট ট্যাংক হতে চলেছে। ইতোমধ্যে এই ট্যাংক তৈরির কাজ শুরু হয়ে গেছে। শত্রুদের চোখের আড়ালে একেবারে গোপনে তৈরি হচ্ছে এই ট্যাংক। মনে করা হচ্ছে, খুব শীঘ্রই এই রোবট ট্যাংক প্রকাশ্যে আসবে।

জানা গেছে, অত্যাধুনিক এই ট্যাংক সম্পূর্ণভাবে চালক ছাড়াই চালানো যাবে। এমনকি সমরাস্ত্রেও সুসজ্জিত থাকবে এই ট্যাংক। শত্রু পক্ষকে মোকাবিলায় এই ট্যাংক সম্পূর্ণভাবে তৈরি।

রুশ বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, ট্যাংকে মেশিনগান এবং ট্যাংক বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র থাকবে। মূলত দূর থেকে নিয়ন্ত্রিত এই ট্যাংক যুদ্ধে যাওয়া সেনাদের সহযোগিতা করবে। অবশ্য এই সম্পর্কে বিস্তারিত কোনো বিবরণ এখন পর্যন্ত প্রকাশ করা হয়নি।

সম্পূর্ণ নিরাপত্তার কারণেই বিশ্বের সব থেকে বড় রোবট ট্যাংকের বিষয়ে আর কিছু জানানো হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি মার্কিন সেনাবাহিনীর আট চাকার সাঁজোয়া যান এম-১১২৬ স্ট্রাইকার আইসিভির সম মানের হবে।

 

অবশ্য বিশালদেহী এই রোবট ট্যাংকের পূর্বসূরি হল কালাশনিকভের তৈরি বিএএস-গ১জি-সোরাতনিক। যানটিতে একটি মেশিনগান, একটি ভারি মেশিনগান, গ্রেনেড লাঞ্চার এবং তিন মাইল পাল্লার ৮টি কোরনেট গাইডেড ক্ষেপণাস্ত্র বসানো আছে।

এটি সর্বোচ্চ ঘণ্টায় ২৫ মাইল বেগে চলতে পারে। একে-৪৭ অ্যাসাল্ট রাইফেল তৈরির মাধ্যমে বিশ্বখ্যাতি অর্জন করে কালাশনিকভ। এ ধরণের রাইফেল বিশ্বে অনন্ত ১০ কোটি তৈরি হয়েছে বলে ধারণা করা হয়।

 

অবশ্য, অস্ত্র তৈরির পাশাপাশি স্মারক দ্রব্য, ভিডিও গেমসসহ নানা পণ্য তৈরি করেছে কালাশনিকভ।

সূত্র : ফ্রান্স/২৪