বাংলাদেশের উন্নয়ন দেখতে আসার পরিকল্পনা বেলজিয়ামের রাজার

বাংলাদেশের প্রশংসনীয় আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন দেখতে বাংলাদেশ সফরে আসার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বেলজিয়ামের রাজা ফিলিপ। দেশটির রাজপ্রাসাদে ১৩ জানুয়ারি সকালে বাংলাদেশের নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত মাহবুব সালেহ্’র কাছে তিনি এ আগ্রহের কথা জানান।

নতুন রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র রাজার কাছে হস্তান্তরের সময় ফিলিপ দারিদ্র দূরীকরণ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, অবকাঠামোগত অগ্রগতিসহ বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চান। এ সময় রাজা ফিলিপ ১৯৯০’এর দশকের শুরুর দিকে বাংলাদেশে তার ব্যক্তিগত সফরের বিষয়টি স্মরণ করেন।

রাষ্ট্রদূত সালেহ্ বেলজিয়ামের রাজার কাছে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন। রাজ দম্পতিকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান তিনি। রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, ২০২১ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের সময় রাজ দম্পতির সফর বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ হবে। দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরো সুদৃঢ় করবে।

রাজা ফিলিপ বাংলাদেশ এবং বেলজিয়ামের মধ্যকার দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেন। রাষ্ট্রদূত সালেহ্ এ সময় দু’দেশের মধ্যে ক্রমবর্ধমান বাণিজ্যিক সম্পর্কের উল্লেখ করে ঔষধ, তথ্য-প্রযুক্তি ও প্রকৌশল শিল্পের মতো সম্ভাবনাময় খাতে বেলজিয়ামের বিনিয়োগকারীদের সম্ভাবনার বিষয়ে তুলে ধরেন।

রাষ্ট্রদূত সালেহ্ রাজা ফিলিপকে রোহিঙ্গা সংকট সম্পর্কে অবহিত করেন। ২০১৯-২০২০ সালে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবে এ ইস্যুতে বেলজিয়ামের সহযোগিতামূলক ভূমিকার প্রশংসা করেন। জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত ১১ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে মিয়ানমারের রাখাইনে প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে বেলজিয়ামসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মিয়ানমার এর উপর অব্যাহত চাপসহ কার্যকরী ভূমিকার আহবান জানান রাজা ফিলিপকে।