ফ্লোরিডায় ভবনধসে নিহত বেড়ে ১১

রয়টার্সের খবরে বলা হয়েছে, বৃষ্টি ও অধিক ধ্বংসস্তূপের কারণে উদ্ধার কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। হতাহত বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এর আগে মিয়ামি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, ধ্বংসস্তূপের আশপাশের ভবনগুলোও খালি করে দেওয়া হয়েছে।

মানুষকে সেখান থেকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ভবনটিতে ঠিক কতজন ছিলেন, তা এখনো নিশ্চিত করে বলতে পারছে না কর্তৃপক্ষ। আবাসিক ওই ভবনটি যখন ধসে পড়ে তখন অনেকেই ঘুমিয়ে ছিলেন। ধসে যাওয়া ভবনের একটি অংশ এখনও দাঁড়িয়ে রয়েছে।

এদিকে দুর্ঘটনায় নিহতদের ও নিখোঁজদের ফুল দিয়ে স্মরণ করছেন স্বজনরা, বিভিন্ন চার্চে চলছে প্রার্থনা। ২০১৮ সালের এক পর্যবেক্ষণ রিপোর্টে ভবনটির মারাত্মক কাঠামোগত ত্রুটি ধরা পড়লেও তার সংস্কার না হওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

মিয়ামি পুলিশ জানিয়েছে, ১৯৮০ সালে ওই ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছিল। এতে ১৩০টি ইউনিট ছিল। এই ধসের কারণে অর্ধেক ইউনিট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ২০১৮ সালের এক পর্যবেক্ষণ রিপোর্টে ভবনটির মারাত্মক কাঠামোগত ত্রুটি ধরা পড়লেও তার সংস্কার না হওয়ায় এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।