ফরিদপুরে বাবার জন্য ওষুধ কিনতে গিয়ে,গণধর্ষণের শিকার কিশোরী

ফরিদপুরে অসুস্থ বাবার জন্য ওষুধ আনতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে ১৪ বছরের এক কিশোরী। বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) দুপুরে এ ঘটনায় কোতয়ালী থানায় একটি মামলা হয়েছে।

পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত চার ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার হওয়া ওই চার তরুণ হলেন, শহরের গোয়ালচামট মোল্লাবাড়ী সড়ক বিহারী কলনী এলাকার আসিবুর রহমান (২৪), ইমরান শেখ (২৪), পাপন শেখ (২৩) ও নান্নু শেখ (২৪)।

জানা যায়, গত ১১ আগস্ট সন্ধ্যায় ঘটনাটি ঘটলেও ধর্ষকদের হুমকির কারণে অসহায় ওই পরিবার আইনের আশ্রয় নেওয়াসহ কিশোরীর চিকিৎসা করাতে পারেনি। কিন্তু গত বুধবার ওই কিশোরীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এরপরই ঘটনা জানাজানি হয়ে যায়। পরে বুধবার থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত পুলিশ ফরিদপুর শহরের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে চার তরুণকে গ্রেফতার করেছে। এ ব্যাপারে ওই কিশোরীর বাবা বৃহস্পতিবার দুপুরে পাঁচ তরুণের নাম উল্লেখ করে ধর্ষণের অভিযোগে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। অভিযোগে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, ওই কিশোরীর বাবা একজন অসুস্থ। গত ১১ আগস্ট মাগরিবের নামাজের পর ওই কিশোরী শহরের গোয়ালচামট মহল্লার লাক্সারি হোটেল সংলগ্ন এলাকায় অসুস্থ বাবার জন্য ওষুধ কিনতে যায়। ওই সময় পাঁচ তরুণ ওই কিশোরীকে জাপটে ধরে মুখ আটকে শ্রীঅঙ্গন এক নম্বর গলির মাথায় সন্তোষ সাহার বাড়ির পেছনে একটি ভিটায় নিয়ে যায়।

সেখানে শহরের গোয়ালচামট মোল্লাবাড়ী সড়ক বিহারী কলনী এলাকার আসিবুর রহমান ওরফে আপন (২৪), ইমরান শেখ (২৪) ও পাপন শেখ (২৩) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করেন। একাজে পাহাড়া দিয়ে ওই তরুণদের সাহায্য করেন একই এলাকার নান্নু শেখ (২৪) ও মালেক সরদার (২৪) নামে অপর দুই তরুণ। পরে কিশোরী অসুস্থ হয়ে পড়েলে রাত ৯টার দিকে তাকে শ্রীঅঙ্গণ পুকুর পাড়ে রেখে যায় বখাটেরা। যাওয়ার সময় বখাটেরা এ ঘটনা কাউকে না জানানোর জন্য ভয়ভীতি দেখায়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রাশেদুল ইসলাম বলেন, গত বুধবার ওই কিশোরী হাসপাতালে ভর্তি হলে জঘন্য এই গণধর্ষণের ঘটনাটি পুলিশের গোচরে আসে। পরে ওই তরুনীর সঙ্গে কথা বলে বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত চার তরুণকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলেন- আসিবুর রহমান, ইমরান শেখ, পাপন শেখ ও নান্নু শেখ।

তিনি আরও বলেন, এ ব্যাপারে ওই কিশোরীর বাবা বৃহস্পতিবার দুপুরে পাঁচ তরুণকে আসামি করে গণধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা করেছেন। গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে যাবতীয় আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শুক্রবার গ্রেফতারদের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হবে।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক সাইফুর রহমান বলেন, ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরী বর্তমানে হাসপাতালের লেবার ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে। শুক্রবার ওই কিশোরীকে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) স্থনান্তর করা হবে।