প্রাদেশিক এক রাজধানী দখল করলো তালেবান

আফগানিস্তানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী জারাঞ্জ দখল করে নিয়েছে তালেবান। আজ শুক্রবার (৬ আগস্ট) বিকেলে অঞ্চলটি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নিতে সক্ষম হয় সশস্ত্রগোষ্ঠীটি। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘ ২০ বছর পর প্রথমবারের মতো কোনো প্রাদেশিক রাজধানীর দখল নিলো তারা। খবর প্রকাশ করেছে বিবিসি ও বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবেদনে বলা হয়, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন ও ন্যাটোর সৈন্য প্রত্যাহারের পর এই প্রথম কোনো প্রাদেশিক রাজধানীর দখল নিলো তালেবানরা। তবে আফগান সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টির সত্যতা স্বীকার করা হয়নি।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিমরোজ পুলিশের এক মুখপাত্র রয়টার্সকে বলেন, সেখানে সরকারি বাহিনীর কাছে প্রয়োজনীয় সংখ্যক সেনা ছিল না। এ কারণে তালেবানদের বিরুদ্ধে তাদের শক্ত প্রতিরোধ গড়া সম্ভব হয়নি। এই সুযোগে রাজধানী জারাঞ্জ দখল করতে সক্ষম হয়েছে তালেবান।

টুইটারে পোস্ট দিয়ে জারাঞ্জ বিজয়ের দাবি করেছে সশস্ত্রগোষ্ঠীটিও। তাদের এক কমান্ডার বলেন, এটা কেবল বিজয়ের শুরু। এখন দেখবেন দ্রুতই অন্যান্য প্রদেশগুলোর পতন আমাদের হাতে ঘটবে।

বিবিসি বলছে, ইরান সীমান্ত নিকটবর্তী আফগানিস্তানের গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য শহর জারাঞ্জ। অঞ্চলটি দখল করার জন্য কয়েকদিন ধরেই সরকারি বাহিনীর সঙ্গে অবিরাম লড়াই চালিয়ে আসছিল তালেবান। অবশেষে দখল নিতে সক্ষম হলো তারা।

অবশ্য দখল হারানোর বিষয়টি অস্বীকার করে আফগান সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, তালেবানের বিরুদ্ধে তারা এখনো লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। এর বাহিরে হেলমান্দ ও জোজ্জন প্রদেশের রাজধানী দখলের কাছাকাছি চলে এসেছে তালেবান যোদ্ধারা।

জোজ্জন প্রদেশের ডেপুটি গভর্নর আবদুল কাদের মালিয়া জানিয়েছেন, প্রদেশের রাজধানী শেবারগানের উপকণ্ঠে ভয়ঙ্কর আক্রমণ চালিয়েছে তালেবানরা। আরেকজন প্রাদেশিক কাউন্সিল সদস্য জানিয়েছেন, জোজ্জনের ১০টি জেলার নয়টিই তালেবানের দখলে।

এদিকে হেলমান্দ প্রদেশেও চলছে ব্যাপক লড়াই। বেসামরিক সম্পত্তির ক্ষতি মানবিক সংকটকে আরও বাড়িয়ে তোলে কারণ রাজধানী লস্করগাহ নিয়ন্ত্রণের জন্য সপ্তাহব্যাপী যুদ্ধে দোকানগুলিতে আগুন লেগে যায়। জাতিসংঘ এই সপ্তাহে বলেছে, তারা শহরে আটকে থাকা হাজার হাজার মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।