প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যপূরণে আ.লীগ নেতাদের পাশে চান স্বাস্থ্যের ডিজি

সুবিধাভোগী অনুপ্রবেশকারীরা যাতে কোনভাবেই দল এবং সরকারের কোন স্তরে আশ্রয় প্রশ্রয় না পায়; সেদিকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (২৮ আগস্ট) দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক উপ-কমিটির উদ্যোগে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকের কাছে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং অধিদপ্তরের মাঝে সমন্বয় না থাকলে সমস্যা তৈরি হয়, তাই এ বিষয়ে সমন্বয় রাখতে স্বাস্থ্যের ডিজির প্রতি পরামর্শ দেন ওবায়দুল কাদের। এদিকে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক খোরশেদ আলম, সফলতার সঙ্গে যাতে দায়িত্ব পালন করতে পারেন সেজন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের এখানে যাআ আছেন বা কেন্দ্রে যারা আছেন, তারা যদি শক্ত করে আমার হাতটা ধরেন, তাহলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে উদ্দেশ্যে আমাকে এখানে বসিয়েছেন, সে উদ্দেশ্যের খানিকটা হলেও সফল করতে পারবো।

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, জনগণের চাহিদা অনুযায়ী সুযোগ সম্প্রসারণের পাশাপাশি পর্যাপ্ত বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতে ও চিকিৎসা সেবার সুযোগ দিন দিন বাড়ছে। দেশে এখন আন্তর্জাতিক মানের চিকিৎসা হচ্ছে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে আমাদের বিদেশমুখিতা কমিয়ে আনতে হবে।

তিনি বলেন, তবে এ কথা সত্য যে, এখনো কোথাও কোথাও স্বাস্থ্যসেবার মান নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। গ্রামাঞ্চলে এখনো স্বাস্থ্যসেবা কাঙ্ক্ষিত মানে পৌঁছায়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চিকিৎসকদের গ্রামমুখী হওয়ার যে নির্দেশনা দিয়েছেন তা যথাযথভাবে পালন করলে গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবার মান আরও উন্নত হবে।

শুধু রাজধানীকেন্দ্রিক নয়, চিকিৎসা ব্যবস্থাকে তৃণমূলে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যেই কাজ করছে সরকার। এ খাতে ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বাড়াতে এবং অনিয়ম দূর করতে সম্প্রতি বেশকিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এসব কার্যক্রম এগিয়ে নিতে চিকিৎসা সংশ্লিষ্ট সবার আন্তরিক সহযোগিতা প্রয়োজন।