প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কটূক্তি, পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পাঁচ কোটি টাকার মামলা

কুমিল্লায় খন্দকার আবু মুছা নামে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদালতে পাঁচ কোটি টাকার মানহানির মামলা করেছেন এক মুক্তিযোদ্ধা। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে ফেসবুকে অপপ্রচার এবং কটূক্তির অভিযোগে মো. সফিউল্লাহ নামে ওই মুক্তিযোদ্ধা ক্ষুব্ধ হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

আদালত বিষয়টি আমলে নিয়ে জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসিকে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ প্রদান করেছেন।

এছাড়া ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আরও দুটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। এদিকে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে ডালপা এলাকায় মানববন্ধন এবং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পুলিশের এসআই খন্দকার আবু মুছা জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানাধীন ডালপা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি ঢাকায় পুলিশের বিশেষ শাখায় কর্মরত রয়েছেন। আর মামলার বাদী মুক্তিযোদ্ধা শফিউল্লাহ একই এলাকার বাসিন্দা।

অভিযোগে জানা যায়, এলাকায় নানা কর্মকাণ্ডের জন্য বিতর্কিত এসআই খন্দকার আবু মুছা ভুয়া ফেসবুক আইডি থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে অপপ্রচার এবং আপত্তিকর একটি খবর নিজের পেজে শেয়ার করেন। বিষয়টি তার নিজ এলাকার লোকজনের দৃষ্টিগোচর হয়। এতে এলাকায় বেশ তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ডালপা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মো. সফিউল্লাহ বাদী হয়ে গত ২৪ আগস্ট পুলিশ কর্মকর্তা আবু মুছার বিরুদ্ধে কুমিল্লার ৮নং আমলী আদালতে একটি মামলা করেন। এতে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাসরিন জাহান উর্মি বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন।

এদিকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে অপপ্রচার এবং কটূক্তির প্রতিবাদসহ ঘটনায় জড়িত পুলিশ কর্মকর্তার শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকালে ডালপা বাজারে এক প্রতিবাদ সমাবেশ এবং মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। আন্দিকুট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবদুল হাকিমের সভাপতিত্বে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাঙ্গরা উপজেলা বাস্তবায়ন পরিষদের আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার মনির খান, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আলেক মিয়া, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সেলিম মিয়া, সাধারণ সম্পাদক নুরু মিয়া, নজরুল ইসলাম মাস্টার, মুক্তিযোদ্ধা সফিউল্লাহ, ইউপি সদস্য জালাল উদ্দিন।

আরও উপস্থিত ছিলেন- ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কাদির মিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক রবি উল্লাহ ভূঁইয়া, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল আলীম, খোরশেদ আলম, আবুল কাশেম, কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সদস্য সাইদুর রহমান মুকুল, ডালপা বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জলিল মোল্লা, জানঘর স্কুলের প্রধান শিক্ষক আতিকুর রহমান ভূঁইয়া, থানা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক লিটন মিয়া, ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিক মিয়া, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জমশেদ মিয়া, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

এদিকে ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ডালপা নেদায়ে ইসলাম দাখিল মাদ্রাসার জমি দখলসহ আরও বেশ কিছু অপকর্মের অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে এসআই খন্দকার আবু মুছার মোবাইলে অসংখ্যবার ফোন করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি। তবে তার এক নিকটাত্মীয় জানান, আবু মুছার ফেসবুক আইডিটি হ্যাক হয়েছে। তাকে হয়রানি করার জন্যই একটি মহল তার বিরুদ্ধে মামলা মানববন্ধন এবং সমাবেশ করছে।

বাদীপক্ষের আইনজীবী আবুল কালাম আজাদ তমাল বলেন, পুলিশের ওই এসআই আবু মুছা ভূঁইয়া নামক তার নিজস্ব ফেসবুক আইডি থেকে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য এবং অপপ্রচার করেছেন। এতে পাঁচ কোটি টাকার মানহানি হয়েছে উল্লেখ করে মুক্তিযোদ্ধা মো. শফিউল্লাহ বাদী হয়ে আদালতে মামলা করেন। অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্তের জন্য আদালত কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেছেন।

এ বিষয়ে কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি আনোয়ারুল আজিম বলেন, মামলার কপি এখনও আমার কাছে এসে পৌঁছায়নি, অভিযোগের কপি পেলে যথাযথভাবে বিষয়টি তদন্ত করা হবে।