পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা নিহত : তদন্ত কমিটিতে পরিবর্তন

কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কে পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত মেজর নিহতের ঘটনায় গঠন করা তদন্ত কমিটি পুনর্গঠন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

আগের কমিটিকে শক্তিশালী করতে আরও এক সদস্য বাড়িয়ে চার জনের কমিটি করা হয়েছে। কমিটির আহ্বায়ককেও পরিবর্তন করা হয়েছে। কমিটির নতুন আহ্বায়ক করা হয়েছে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (চট্টগ্রাম বিভাগ) ও যুগ্ম সচিব মিজানুর রহমানকে।

রোববার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক আদেশে নতুন কমিটির বিষয়টি জানানো হয়।

এছাড়া আরও উল্লেখ করা হয়েছে, আগের ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির আহ্বায়ক কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহা. শাজাহান আলিকে কমিটির ‘সদস্য’ হিসাবে থাকবেন। বাকি দুই সদস্যদের জায়গায় ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজারের এরিয়া কমান্ডারের একজন প্রতিনিধি ও উপপুলিশ মহাপরিদর্শকের (চট্টগ্রাম রেঞ্জ) প্রতিনিধি থাকবেন।

কমিটিকে আগামী সাত কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কে টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত মেজর নিহত হন। নিহত অবসরপ্রাপ্ত মেজরের নাম সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান (৩৬)। তার ওপর গুলি চালান বাহারছড়া ফাঁড়ির দায়িত্বরত পুলিশ ইন্সপেক্টর লিয়াকত।

ইতিমধ্যে বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীসহ ২০ জনকে ক্লোজড (প্রত্যাহার) করা হয়েছে।

শনিবার রাতে পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন জানান, ফাঁড়ির পুরো টিমকে কক্সবাজার জেলা পুলিশ লাইনসে প্রত্যাহার করা হয়েছে। বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়িতে পুরো নতুন টিম দেয়া হয়েছে।