পাকিস্তান-সৌদি আরব বিরোধ তুঙ্গে!

পাকিস্তান ও সৌদি আরবের মধ্যে সম্পর্ক দ্রুত অবনতি হতে থাকে ফেব্রুয়ারিতে। ওই সময় কাশ্মির ইস্যুতে সৌদি আরব ইসলামি সহযোগিতা সংস্থার (ওআইসি) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন আয়োজনে পাকিস্তানি প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে।

ইসলামাবাদ এটি মেনে নেয়নি। তারা জোর দিয়ে বলতে থাকে, কাশ্মির ইস্যুতে ভারতকে চাপে রাখার জন্য ওআইসিকে ব্যবহার করতে হবে। এই প্রেক্ষাপটে সৌদি আরব ওই ঋণ ফেরত চায়।

ওআইসি ৫৭টি মুসলিম দেশ নিয়ে গঠিত। এটি প্রধানত সৌদি আরবে নিয়ন্ত্রিত।
কাশ্মির নিয়ে ১৯৪৭ সাল থেকে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। উভয় দেশ এর অংশবিশেষ নিয়ন্ত্রণ করছে এবং পুরোটা নিজের বলে দাবি করছে।

ন ১৯৬৩ সাল থেকে কাশ্মিরের আকসাই চিন অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ করছে। পরে কাশ্মির প্রশ্নে চীন পাকিস্তানের অনুকূলে অবস্থান নেয়। এর রেশ ধরে সাম্প্রতিক সময়ে চীন ও ভারতের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি অব্যাহতভাবে প্রকাশ্যেই বলছেন যে সৌদি আরবের উচিত হবে ওআইসি সম্মেলন আহ্বান করা।

গত সপ্তাহে এক টিভি সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, আমি আজ ওআইসিকে বলছি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন আয়োজন করতে। তারা যদি না ডাকে, তবে আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলব, ইসলামি দেশগুলোর [ইরান, তুরস্ক ও মালয়েশিয়া] সম্মেলন আয়োজন করতে। তারা কাশ্মির ইস্যুতে আমাদের পাশে থাকবে।

সর্বশেষ এই ঘটনার ফলে পাকিস্তানে ২০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের জন্য সৌদি আরবের সাথে হওয়া সমঝোতা স্মারক বাস্তবায়নও প্রশ্নের মুখে পড়েছে। ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সফরের সময় ওই সমঝোতা হয়েছিল।

প্রস্তাবিত বিনিয়োগের মধ্যে ছিল চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর সিপিইসির অন্যতম প্রকল্প গোয়াদর বন্দর এলাকায় ১০ বিলিয়ন ডলার মূল্যে একটি তেল শোধনাগার নির্মাণ।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, ভারতকে সংযত করার জন্য পাকিস্তান ও চীন প্রয়াস চলানোর ফলে সৌদি আরব এখন আর ইসলামাবাদের প্রতি আগ্রহী নয়।

প্রাগের ইউনিভার্সিটি অব ইকোনমিক্সের ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের জ্যাঁ মাসারিক সেন্টারের সহকারী অধ্যাপক জেরেমি গারলিক বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপন করছে সৌদি আরব।

যুক্তরাষ্ট্রই চীনা উদ্যোগ থেকে সরে আসতে সৌদি আরবের ওপর পর্দার অন্তরাল থেকে চাপ প্রয়োগ করছে।

তিনি বলেন, পাকিস্তান যেহেতু চীনের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত। আবার চীন ও পাকিস্তান উভয়ে ভারতের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ছে। কাজেই সৌদি আরবের পাকিস্তানকে সমর্থন দেয়া ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছিল।

সিঙ্গাপুরের এস রাজারত্নম স্কুল অব ইন্টারন্যাশনালের সিনিয়র ফেলো জেমস এম ডোরসে বলেন, সৌদি ও ভারতের মধ্যকার ঘনিষ্ঠ অর্থনৈতিক সম্পর্ক পাকিস্তানের প্রতি মধ্যপ্রাচ্যের দেশটির মনোভাব বদলে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, ভারতে সৌদি আরবের ব্যাপক বিনিয়োগ আছে। তারা সৌদি আরবের তেলের অন্যতম ক্রেতা। ফলে কাশ্মির প্রশ্নে পাকিস্তানের প্রতি সমর্থন হ্রাস করতে যাচ্ছে রিয়াদ।

অন্যান্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সৌদি আরব কূটনৈতিক জটিলতায় আছে। তাদেরকে ভারসাম্য রক্ষার একটি পথ বের করতে হবে। তাদের মতে ইরানের কাছে হওয়ায় পাকিস্তানের সাথে সম্পর্ক রক্ষা করা দরকার সৌদি আরবের।

বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, কেবল সৌদি আরবই নয়, বেইজিংও উদ্বিগ্ন। সৌদি তেল প্রয়োজন চীনাদেরও।
বেইজিংভিত্তিক অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ ইনার তানজেন বলেন, আদর্শগত নয়, বরং বাস্তব কারণেই ইসলামাবাদ-রিয়াদ সম্পর্কের ব্যাপারে দৃষ্টি রাখছে চীন।

তিনি বলেন, অর্থনৈতিক স্বার্থ সমুন্নত রাখতে চীনের প্রয়োজন স্থল ও সমদ্র রুটগুলো চালু রাখা। এ কারণেই আঞ্চলিক বিভক্তি চীনের স্বার্থের অনুকূলে নয়।
বিশ্লেষকেরা আশঙ্কা করছেন, ইসলামাবাদ-রিয়াদ দূরত্বের ফলে পাকিস্তানকে আরো বেশি করে চীনের দিকে ঠেলে দেবে।