‘পশ্চিমবঙ্গে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ফের ক্ষমতায় আসবে তৃণমূল’

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের খাদ্যমন্ত্রী ও উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেছেন, আগামী ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে আমরাই ক্ষমতায় আসব। আমরাই জিতব। কোনও ভয় পাওয়ার কারণ নেই।

তিনি আজ (মঙ্গলবার) দুপুরে হাবড়া-১ নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের ডাকে সাংগঠনিক আলোচনা সভায় দলীয় নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্য বক্তব্য রাখার সময়ে ওই মন্তব্য করেন।

জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, ‘বিগত বিধানসভা (২০১৬) নির্বাচনে ২১১ আসনে জয়ী হয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (তৃণমূল নেত্রী ও মুখ্যমন্ত্রী) ক্ষমতায় এসেছিলেন। আসন্ন নির্বাচনে ২৩৫ আসনে জয়ী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুনরায় ক্ষমতায় আসবেন। বিরোধীদের কাছে কোনও মুখ্যমন্ত্রীর নাম নেই। কিন্তু আমরা আমাদের নাম ঠিক করে ফেলেছি। আমাদের মুখ্যমন্ত্রীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই জেলায় ৩৩ টি বিধানসভা আসনের মধ্যে আমরা ৩৩ টিতেই জয়ী হবো।’

জ্যোতিপ্রিয় বাবু আরও বলেন, ‘বিগত লোকসভা নির্বাচনে মানুষ যে ভুল করেছিল সেটা তারা এখন বুঝতে পারছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিকল্প হয় না। তবে আমাদের কর্মীদেরকেও বলছি, মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। ব্যবহার খারাপ করলে হবে না। মানুষের অসুবিধাগুলো শুনে তা সমাধান করতে হবে। মানুষের চাহিদা পূরণ করতে হবে।’

এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কার বাড়িতে চাল পৌছাচ্ছে না সে দায়িত্ব আমাদের। কে রেশন কার্ড করতে পারছে না, তার রেশন কার্ড করে দিতে হবে।’

দলীয় সভা শেষ আজ এক সংবাদ সম্মেলনে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, ‘আজকে পৃথিবা, কুমড়া, রাউতাড়া, মছলন্দপুর-২ অঞ্চলের বুথ লেভেলের কর্মীদের সঙ্গে বসেছিলাম। বুথস্তরের কর্মীরা বাড়িবাড়ি ঘুরছেন, আরও ঘুরে জনসংযোগ বৃদ্ধি করতে হবে। এবার কর্মীদের পাশাপাশি আমি নিজেও বাড়িতে বাড়িতে যাবো।’

বিজেপি’র নাম না করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কোন দল তার মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী পেলো না পেলো সেটা তাঁদের ব্যাপার। কিন্তু একটা জিনিষ মনে রাখতে হবে ধরুন কেউ রাজ্যপাল ছিল। তার কী করা উচিত? অবসর নিয়ে চলে যাওয়া উচিত। রাজপাল পদ হল সাংবিধানিক পদ।

আমাদের রাজ্যপাল ধনখড় সাহেব, তিনি বলছেন আমি রাজ্যপাল থাকব না আমি রাজনীতি করবো। আরেক রাজ্যপাল মেঘালয় থেকে চলে এসেছেন, তিনিও মুখ্যমন্ত্রীর দাবিদার! ধনখড় সাহেব মুখ্যমন্ত্রীর দাবিদার! দিলিপ ঘোষও মুখ্যমন্ত্রীর দাবিদার! রাহুল সিনহাও মুখ্যমন্ত্রীর দাবিদার! এতো দেখছি ‘মুখ্যমন্ত্রী মণ্ডলী’ করা দরকার! এভাবে চলতে থাকলে ভারতের সংবিধান পরিবর্তন করে ‘মুখ্যমন্ত্রী মণ্ডলী’ করতে হবে যে একটা রাজ্যে পাঁচজন মুখ্যমন্ত্রী হবেন!’

জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেবল বাংলা নয়, সারা ভারতে তাঁর বিকল্প কোনও মুখ নেই। সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিকল্প মুখ কেউ খুঁজে পাবেন না। কংগ্রেসের মধ্যে খেয়োখেয়ি, কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি শুরু হয়েছে।

বাংলায় বিজেপি’র কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি কদর্য। যে ভাষা ব্যবহার করছেন বিজেপি নেতারা তা কোনও দল হেরে গেলে সেসব ব্যবহার করে। বিজেপি বুঝতে পেরেছে যে তারা হেরে যাবে। আমি ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে ভাবছি না। আমি বিজেপি’র উদ্দেশ্যে বলেছি, ২০২১-এর স্বপ্ন না দেখে এখন থেকে তারা ২০৫৬ সালের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিক।

বিজেপি’র এক নেতা ভিন রাজ্য থেকে বাংলায় এসে ভোটার তালিকায় নাম তুলছেন এবং তিনিই নাকি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী হবেন! মুখ্যমন্ত্রী হওয়া তো পরের স্বপ্ন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পরাজিত করা তো অনেক বড় ব্যাপার, আগে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকদের সঙ্গে নির্বাচনি লড়াইতে নামুন।’

বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহা, তথাগত রায়রা আগে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকদের সঙ্গে লড়াই করুক বলেও এভাবে খাদ্যমন্ত্রী বিজেপি নেতাদের কার্যত চ্যালেঞ্জ জানান।