পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে ইরান: আলী রাবিয়ি

ইরান সরকারের মুখপাত্র আলী রাবিয়ি বলেছেন, তার দেশ পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে আছে এবং ইরানি জনগণ অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় এই সমঝোতার ইতিবাচক ফল ভোগ করার কাছাকাছি অবস্থায় রয়েছে।

ইরানের পরমাণু সমঝোতাকে আবার কার্যকর করার লক্ষ্যে গত এপ্রিলে ভিয়েনায় পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের সংলাপ শুরু হয় এবং গত মাসের শেষ দিকে ছয় দফা আলোচনা সম্পন্ন হয়। তবে সপ্তম ও চূড়ান্ত দফা আলোচনার আগে আমেরিকার সঙ্গে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে মতপার্থক্য নিরসন নিয়ে অচলাবস্থা দেখা দেয়।

আলী রাবিয়ি দৃশ্যত ইউরোপীয় দেশগুলোর সঙ্গে কূটনৈতিক চ্যানেলে যোগাযোগের মাধ্যমে সে অচলাবস্থা অবসানের ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, শিগগিরই পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের চুক্তি স্বাক্ষরের সম্ভাবনা রয়েছে।

ওদিকে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেছেন, ভিয়েনা সংলাপ আবার শুরু করার কোনো তারিখ নির্ধারিত না হলেও আমেরিকা সপ্তম দফা পরোক্ষ বৈঠকে ফিরে যেতে প্রস্তুত রয়েছে। এর আগে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে সোমবার খবর দিয়েছিলেন, ভিয়েনা সংলাপের আরো কিছু খুঁটিনাটি বিষয়ে অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে।

রাবিয়ি আজ (মঙ্গলবার) তেহরানে সাংবাদিকদের সাপ্তাহিক ব্রিফিংয়ে আরো বলেন, পরমাণু সমঝোতা স্বাক্ষরের বার্ষিকীর কাছাকাছি দাঁড়িয়ে আমরা এ দিনটিকে ‘বিশ্বের সঙ্গে গঠনমূলক সংলাপ’ নাম দিয়েছি। আগামী বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) পরমাণু সমঝোতা স্বাক্ষরের ৬ষ্ঠ বার্ষিকী। রাবিয়ি বলেন, এ দিনে ইরান বিশ্বের সকল জাতির সঙ্গে উত্তেজনা প্রশমন ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে নিজের সদিচ্ছার প্রমাণ দিয়েছে।

সংলাপকে যেকোনো মতপার্থক্য নিরসনের একমাত্র উপায় হিসেবে বর্ণনা করে ইরান সরকারের মুখপাত্র বলেন, পরমাণু সমঝোতা সই হওয়ার পর ইরানের শত্রুরা সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্টকে ধোকা দিয়ে এটি থেকে বের করে নেয়। এর ফলে ইরানের ওপর একতরফা নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হলেও আমেরিকা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে প্রতিশ্রুতি ভঙ্গকারী হিসেবে চিহ্নিত হয় এবং মার্কিন পররাষ্ট্রনীতি নজিরবিহীন ব্যর্থতা ও মর্যাদাহানির মুখে পড়ে।

সূত্রঃ পার্সটুডে