নিজদলেই বিরোধীতার সম্মুখীন শি জিনপিং! জল্পনা তুঙ্গে

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের বিরুদ্ধে কমিউনিস্ট পার্টিতে বিরোধীতা বাড়ছে। দল ছেড়ে বেরিয়ে যেতে চাইছেন অনেকেই। কেউ কেউ বলছেন, চীনকে ‘বিশ্বের শত্রু’তে পরিণত করেছেন আজীবন ক্ষমতাপ্রাপ্ত শি জিনপিং।

এ ব্যাপারে আভ্যন্তরীণ সূত্রের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে বৃটিশ গণমাধ্যম খবরে বলা হয়, চীনের অভিজাত সেন্ট্রাল পার্টি স্কুলের সাবেক এক অধ্যাপিকা সম্প্রতি বিরল এক ঘটনায় শি’র তীব্র সমালোচনা করেছেন। চাই শিয়া নামের ওই অধ্যাপিকা শি’র বিরুদ্ধে ‘চীনকে খুন’ করার অভিযোগ এনেছেন। দাবি করেছেন, চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি থেকে অনেকেই বেরিয়ে যেতে চান।

সোমবার এক এক অডিও রেকর্ডিংয়ে দেওয়া মন্তব্যের জেরে চাইকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। গত জুনে শি’র সমালোচনা করে ওই বক্তব্য দিয়েছিলেন চাই। তা অনলাইনে ফাঁস হয়ে যায়।

দল থেকে বহিষ্কার হওয়ার পর  এক বক্তব্যে চাই বলেন, বহিষ্কৃত হয়ে তিনি খুশিই হয়েছেন। তিনি বলেন, শি’র শাসনামলে চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টি চীনের অগ্রগতির পক্ষের শক্তি হিসেবে কাজ করছে না। আদতে, এটা চীনের অগ্রগতি ঠেকিয়ে রেখেছেন।

তিনি আরও বলেন, আমি বিশ্বাস করি এই দল থেকে আরও অনেকে বের হয়ে যেতে চান। অনেকে দল ছেড়ে যেতে চান। আমি কয়েক বছর আগেই দল ছেড়ে চলে যেতে চেয়েছিলাম, যখন এর ভেতরে আমার কথা বলার সুযোগ ছিল না, যখন আমার কন্ঠস্বর পুরোপুরি চেপে রাখা হয়েছিল।

প্রাথমিকভাবে গত জুনেই তার অডিও প্রকাশের পরপর গার্ডিয়ানকে বক্তব্য দিয়েছিলেন চাই। তবে সে সময় তার পরিবার অডিও রেকর্ডিং নিয়ে হুমকি পাচ্ছিল বলে ওই বক্তব্য প্রকাশ না করার অনুরোধ করেছিলেন চাই। সে সময় দেওয়া বক্তব্যে তিনি বলেছিলেন, চীনকে বিশ্বের শত্রু বানিয়েছেন শি।

এদিকে মঙ্গলবার চাই জানান, এখন আর তার বক্তব্য প্রকাশ নিয়ে সমস্যা নেই। তিনি নিজের ইচ্ছামতো বক্তব্য দিতে পারবেন।

তিনি বলেন, দলের ভেতর শি’র বিরুদ্ধে বিরোধীতা বাড়ছে। তবে ভয়ে কেউ মুখ খুলছেন না। এমন পরিবেশে শি’র অনিয়ন্ত্রিত ক্ষমতা ও প্রত্যেক বড় সিদ্ধান্ত নিয়ন্ত্রণের চেষ্টাই করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা সৃষ্টি করেছিল।

সূত্র:দ্য গার্ডিয়ান