নাসিরের টার্গেট ধনী মেয়ে, পটিয়েছেন অনেককে

ধনাঢ্য পরিবারের মেয়েদের টার্গেট করে ভিন্ন ভিন্ন পরিচয়ে প্রতারণা চালিয়ে আসছিলেন তিনি। একেক সময় একেক পরিচয়। কখনো এসএসএফ’র সহকারী পরিচালক আবার কখনো বড় কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। একেক জায়গায় এমন একেক পরিচয় দিতেন পাবনার নাসির উদ্দিন বুলবুল।

বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দামি হাত ঘড়ি চশমা। দামি পোশাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা।

প্রতারক নাসির উদ্দিন বুলবুলকে এক সহযোগীসহ গণভবন এলাকা থেকে আটক করেছে শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশ।

মাসের ত্রিশ দিনে পরতেন ত্রিশটি সানগ্লাস, হাতে নামি দামি ব্র্যান্ডের ঘড়ি, পোশাকেও রাখতেন আভিজাত্যের ছাপ। কখনো পরিচয় দিতেন এসএসএফ কর্মকর্তা কখনো বা সরকারি কোনো দফতরের উচ্চপদস্থ কেউ।

জমিজমার বিবাদ মীমাংসা ও চাকরি দেয়ার কথা বলে করতেন প্রতারণা। প্রত্যেকদিন আলাদা আলাদা নারীদের সঙ্গে থাকত তার অ্যাপয়েন্টমেন্ট। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে হাতিয়ে নিতেন কোটি কোটি টাকা।

সহযোগী মনিরসহ প্রতারক বুলবুলকে গণভবনের সামনে থেকে আটকের পর সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও জোনের উপ-কমিশনার (ডিসি) হারুন উর রশিদ।

জানানো হয়, বুলবুলের মিরপুরের পল্লবীর বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ মোবাইল সিম কার্ড, দামি ঘড়ি, চশমা ও স্বর্ণালঙ্কারসহ বিভিন্ন ব্যাংকের চেক বই ও জমির দলিল জব্দ করা হয়। এমন পোশাক-আশাক ব্যবহার করে উচ্চবিত্ত পরিবারের মেয়েদের ফাঁদে ফেলে তাদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন নাসির

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বুলবুল তার প্রতারণার কথা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় প্রতারণার মামলা করা হয়েছে।