থামছেই না করোনার তাণ্ডব, আগস্টের ১৪ দিনেই শনাক্ত ৩৬ লাখ!

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে নাকাল গোটা বিশ্ব। এই ভাইরাসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে আমেরিকা-ইউরোপসহ পুরো বিশ্ব। এর ধ্বংসযজ্ঞে দিশেহারা হয়ে পড়েছে আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানও। কোনওভাবেই থামানো যাচ্ছে না প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের তাণ্ডব।

গত জুলাই মাসে বিশ্বজুড়ে রীতিমতো ‘তাণ্ডব’ চালানোর পর আগস্টেও একই হারে আক্রান্ত করে যাচ্ছে এই ভাইরাস।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাব অনুযায়ী, চলতি মাসের প্রথম দুই সপ্তাহে নতুন এই রোগটিতে ৩৬ লাখ ১৮ হাজার ২৩৬ মানুষের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।
জুলই মাসের প্রথম দুই সপ্তাহে এর চেয়ে কম মানুষ পজিটিভ হয়েছিলেন।

ওই সময়ে শনাক্তের সংখ্যা ছিল ২৭ লাখ ৩৪ হাজার ২১৪ জন। জুলাইয়ে সব মিলিয়ে বিশ্বব্যাপী ৬৯ লাখ ৪১ হাজার ৫২০ জন পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়। চলতি মাসে এই রেকর্ড ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে বিভিন্ন জরিপে আশঙ্কা করা হয়েছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ১৩ লাখ ৪৫ হাজার ৭৩১ জন।

এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১ কোটি ৪১ লাখ ৩৯ হাজার ৪৬৫ জন। আর মারা গেছে ৭ লাখ ৬৩ হাজার ১৩৩ জন।

আক্রান্ত এবং মৃতের তালিকায় শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত ৫৪ লাখ ৭৬ হাজার ২৬৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছে ১ লাখ ৭১ হাজার ৫৩৫ জন। আর সুস্থ হয়েছে ২৮ লাখ ৭৫ হাজার ১৪৭ জন।

ব্রাজিলে ১ লাখ ৬ হাজার ৫৭১ জনের প্রাণ গেছে কোভিড-১৯ রোগে। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ৩২ লাখ ৭৮ হাজার ৮৯৫ জন। সুস্থ ২৩ লাখ ৮৪ হাজার ৩০২ জন।

২১০ মিলিয়ন মানুষের দেশটিতে মে মাসের শেষ দিক থেকে গড়ে প্রতিদিন প্রায় ১ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

তিন নম্বরে থাকা ভারতে প্রায় প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। দেশটিতে মোট ২৫ লাখ ২৫ হাজার ২২২ জন কোভিড-১৯ পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু ৪৯ হয়েছে হাজার ১৩৪ জনের।

এদিকে, করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিন অনুমোদনের ঘোষণা দেওয়া রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত ৯ লাখ ১২ হাজার ৮২৩ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছে ১৫ হাজার ৪৯৮ জন।

পাঁচ নম্বরে থাকা দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫ লাখ ৭৯ হাজার ১৪০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে মারা গেছে ১১ হাজার ৫৬৫ জন।

মেক্সিকোয় শনাক্ত রোগী প্রায় ৫ লাখ হলেও মৃত্যুতে অনেক ওপরে দেশটি। এখন পর্যন্ত ৫৫ হাজার ৯০৮ জন মারা গেছে সেখানে।