ত্রিপুরায় যত অত্যাচারিত হচ্ছি মানুষ ততবেশি তৃণমূলপন্থি হচ্ছে : ফিরহাদ হাকিম

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল নেতা ও পরিবহণ মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছেন, ত্রিপুরায় আমরা যত অত্যাচারিত হচ্ছি মানুষ ততবেশি তৃণমূলপন্থি হয়ে যাচ্ছে।

বিজেপিশাসিত ত্রিপুরায় রাজনৈতিক কর্মসূচিতে গিয়ে তৃণমূল নেতা-নেত্রীরা হামলার শিকার ও পরবর্তীতে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম আজ (রোববার) ওই মন্তব্য করেন।

ফিরহাদ হাকিম আজ বিজেপিকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গে যারা গণতন্ত্র নেই বলে কুমিরের কান্না কাঁদেন, তারা প্রকৃত গণতন্ত্র দেখিয়ে দিচ্ছেন ত্রিপুরায়। সেখানে বিরোধীদের মেরে জেলে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তারা জানেন না, দলটার নাম তৃণমূল কংগ্রেস, এরা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শ মেনে চলে। ৩৪ বছরে আমরা রক্ত দিতে ভয় পাইনি, গুলি খেতে ভয় পাইনি। ত্রিপুরাতে আমরা আক্রান্ত হয়েছি। গ্রেফতার হচ্ছি, অত্যাচারিত হচ্ছি। কিন্তু ত্রিপুরার মানুষ ততবেশি তৃণমূলপন্থী হয়ে যাচ্ছে। তৃণমূলের দিকে ঝুঁকছে।

ত্রিপুরায় তৃণমূল নেতা-নেত্রীদের গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে সেখানকার খোয়াই থানায় আজ উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। আজ আগরতলা বিমানবন্দর থেকে খোয়াই থানায় পৌঁছতেই তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এমপিকে কালো পতাকা দেখান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। এর পাশাপাশি, গো ব্যাক স্লোগানও দেওয়া হয়। পাল্টা স্লোগান দেন তৃণমূল কর্মীরা। কেন জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা করা হয়েছে এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তৃণমূল নেতাদের তুমুল বচসা হয়।

আজ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এমপি বিজেপিকে কটাক্ষ করে বলেন, বলেন,‘উত্তর ভারতের নেতারা ত্রিপুরার মানুষকে পুতুলের মতো নাচাচ্ছেন। এখানে আর বিপ্লব দেবের আইন চলবে না। আপনারা লিখে রাখুন ১৭ মাস পরে বিপ্লবের সরকার বিদায় নিচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘ত্রিপুরায় তৃণমূলের কিছু আছে? চারটে লোক নেই। বহিরাগত সব নিয়ে গিয়ে ওখানে গণ্ডগোল বাঁধাচ্ছে। ত্রিপুরার মানুষ এসব মেনে নেবে না।

সূত্রঃ পার্সটুডে