তালেবান ক্ষমতায় গেলে আফগান সীমান্ত বন্ধ করে দেবে পাকিস্তান

আফগানিস্তান থেকে সামরিক জোট ন্যাটো ও মার্কিন সৈন্য সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই কার্যক্রম শেষ হবে। এমতাবস্থায় দেশটিতে তালেবানরা আবারও ক্ষমতায় আসতে পারে বলে শঙ্কা রয়েছে। যদি এমনটা হয় তাহলে আফগান সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেইশি। খবর প্রকাশ করেছে দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও বার্তা সংস্থা এপি।

রবিবার (২৭ জুন) মুলতানে সাপ্তাহিক প্রেস ব্রিফিংয়ে আফগানিস্তানে সহিংসতা ও অরাজকতা আবারও মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, বর্তমানে পাকিস্তানে ৩৫ লাখ আফগান শরণার্থী আছে। আর কাউকে নেওয়া সম্ভব না। তাই জাতীয় স্বার্থের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আফগান সীমান্ত বন্ধ করতেই হবে।

আফগানিস্তানে শান্তিপ্রতিষ্ঠায় পাকিস্তান কূটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে জানিয়ে শাহ মাহমুদ কোরেইশি বলেন, সেখানে (আফগানিস্তান) গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচিত সরকারকে স্বাগত জানাবে ইসলামাবাদ।

১৯৮৯ সালে সোভিয়েত বাহিনী প্রত্যাহারের পর আফগানিস্তানে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। সেটির জেরে তখন লাখ লাখ আফগান নাগরিক পাকিস্তানে আশ্রয় গ্রহণ করেন। সে সময় ক্ষমতায় ছিল তালেবান। এরপর মার্কিন বাহিনীর হাতে ক্ষমতাচ্যুত হয় তারা।

দীর্ঘ ২০ বছর অবশেষে আফগানিস্তান থেকে সৈন্য সরিয়ে নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু দেশটিতে সহিংসতা আবারও বাড়ছে। যা নিয়ে উদ্বিগ্ন আন্তর্জাতিক মহল। তাদের শঙ্কা, ফের ক্ষমতায় আসতে পারে তালেবান।