তালেবানের হাতে এবার সপ্তম প্রদেশের পতন ঘটলো

আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ ফারাহর রাজধানী ফারাহ দখল করে নিয়েছে তালেবান গোষ্ঠী। এ নিয়ে গত এক সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে তালেবান দেশটির সাতটি প্রাদেশিক রাজধানীর নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বলে ফরাসী বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। দেশটিতে মোট ৩৪টি প্রদেশ রয়েছে।

এএফপি বলছে, তালেবানের যোদ্ধারা ফারাহ দখলে নেওয়ায় ওই শহরের লাখ লাখ বাসিন্দা রাজধানী কাবুলের উত্তরে এবং অন্যান্য এলাকায় তুলনামূলক নিরাপদ স্থানে পালিয়ে গেছেন।

ফারাহ প্রাদেশিক কাউন্সিলের সদস্য শাহলা আবুবার বলেন, আজ বিকেলে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে সামান্য লড়াইয়ের পর ফারাহ শহরে ঢুকে পড়েন তালেবান যোদ্ধারা। তাঁরা গভর্নরের অফিস ও পুলিশের সদর দপ্তর নিয়ন্ত্রণে নিয়েছেন।

এদিকে তালেবান যোদ্ধারা গতকাল আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলে দখলকৃত অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ আরও মজবুত করেছেন। ওই এলাকায় বাসিন্দারা নিরাপদ আশ্রয় খুঁজছে। অন্যদিকে উত্তরের বড় শহর মাজার-ই-শরিফের কাছাকাছি চলে এসেছেন তালেবান যোদ্ধারা। তবে এ শহর সুরক্ষায় প্রাণপণ লড়াই করার ঘোষণা দিয়েছেন সরকারপন্থী কমান্ডার আতা মোহাম্মদ নূর।

তালেবানের হামলার মুখে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি আঞ্চলিক কমান্ডারদের কাছে সরকারকে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়েছেন। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে গনি সরকারকে নিজেদের সুরক্ষার ব্যবস্থা নিজেদেরই করতে বলা হয়।

মাজার-ই-শরিফ ও আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের প্রধান সড়কে পড়েছে সামানগান প্রদেশের রাজধানী আইবাক শহর। সেখানেও নিজেদের অবস্থান শক্ত করছেন তালেবান যোদ্ধারা। স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, ইতিমধ্যে আইবাকের অনেক সরকারি ভবনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন তালেবান যোদ্ধারা।

সোমবার আইবাক নিয়ন্ত্রণে নেয় তালেবান। আইবাক শহরের পরিস্থিতি প্রসঙ্গে প্রাদেশিক কর কর্মকর্তা শের মোহাম্মদ আব্বাস বলেন, এখানে টিকে থাকার একমাত্র উপায় হচ্ছে নিজেকে ঘরবন্দী করে রাখা বা কাবুল যাওয়ার রাস্তা খুঁজে বের করা। তবে এখন কাবুলও আর নিরাপদ নয়।

আব্বাস বলেন, তাঁর অফিসে তালেবান সদস্যরা এসে সব কর্মীকে বাড়িতে চলে যেতে বলেন। গতকাল তিনি বা তাঁর কোনো সহকর্মী কোথাও লড়াই হওয়ার খবর শোনেননি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, স্থানীয় এক সাংসদ জানান, আফগান নিরাপত্তা বাহিনীকে সীমান্ত শহর আইবাক থেকে বিতাড়িত করেছে তালেবান। আফগানিস্তান থেকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন বহুজাতিক সেনাদের পুরোপুরি প্রত্যাহারের প্রক্রিয়া শুরুর পর তালেবান দেশটিতে অভিযান জোরদার করেছে। এর আগে গত রোববার এক দিনেই কুন্দুজ, সার-ই-পল ও তাকহার প্রদেশের রাজধানী দখল করে নেয় তালেবান।

গত শনিবার আফগানিস্তানের জাওজান প্রদেশের রাজধানী সেবারঘানের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। আগের দিন শুক্রবার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ নিমরোজের রাজধানী জারাঞ্জ দখলে নেয় তারা। স্থানীয় বাসিন্দারা বলছেন, অধিকাংশ সরকারি নিরাপত্তা বাহিনীকে শহর থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

এএফপি আরও জানায়, আফগানিস্তানবিষয়ক মার্কিন আলোচক জালমে খলিলজাদ চলতি সপ্তাহে দোহার আলোচনায় তালেবানকে তাদের সামরিক আক্রমণ বন্ধ করার জন্য চাপ দেবেন বলে জানা গেছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের বিবৃতিতে বলা হয়, আফগানিস্তানের দ্রুত অবনতিশীল পরিস্থিতির জন্য একটি যৌথ আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া তৈরিতে সাহায্য করবেন খলিলজাদ।

সূত্র : এএফপি, রয়টার্স