তালেবানের কথার সঙ্গে কাজের মিল নেই: জারিফা

আফগানিস্তান ছেড়ে গোপনে পালিয়ে গেছেন দেশটির প্রথম নারী মেয়র জারিফা গাফারি। তিনি সবসময় আফগান নারীদের অধিকারের পক্ষে কথা বলে আসছেন। যার কারণে গোষ্ঠীটির চোখে খারাপ বলে পরিচিতি পান। বর্তমানে তিনি জার্মানিতে অবস্থান করছেন। সেখান থেকে বিবিসির সঙ্গে কথা বলেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, তালেবান শাসনের অধীনে আফগানদের জীবন রক্ষায় রাজনীতিক ও বিশ্বনেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে জানিয়েছেন জারিফা। একই সঙ্গে তালেবানের সঙ্গেও আলোচনা করবেন। তিনি বলেন, কারণ, আমাদের একে অপরকে বুঝার চেষ্টা করতে হবে।

জারিফা গাফারি বলেন, বিদেশি বাহিনী আমাদের সাহায্য করতে আসবে না। তালেবানের সঙ্গে ইস্যুটির সমাধান করার এটি আমাদের সময়। আমি এর দায়িত্ব নিতে প্রস্তুত।

আফগানিস্তানের এই নারী নেত্রী এখনো তালেবানকে বিশ্বাস করেন না। বিশেষ করে নারী অধিকারের ক্ষেত্রে। পূর্বে তালেবানের শাসনামলে (১৯৯৬-২০০১ সাল) গোষ্ঠীটি নারীেদর শিক্ষা ও বাইরে কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছিল। মেয়েদের অল্প বয়সে জোর করে বিবাহ দেওয়া হতো। পরিবারের পুরুষ সঙ্গী ছাড়া কোনো নারী বাড়ির বাইরে বের হতে পারতো না। কেউ এসবের অমান্য করলে তার ওপর নেমে আসতো নির্যাতনের স্ট্রিম রোলার।

অবশ্য গত সপ্তাহে তালেবানের মুখপাত্র জবিহুল্লাহ মুজাহিদ বলেন, ইসলামী শরিয়াহ আইনের অধীনে নারীরা সব কাজই করতে পারবেন। তবে জারিফা বলছেন, তালেবানের কথার সঙ্গে কাজের মিল নেই।

একদিন আফগানিস্তানে ফিরে আসবেন, আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, এটি আমার দেশ, আমি তৈরি করেছি। দেশটি তৈরি করতে বছরের পর বছর কষ্ট করেছি।

আমি আমার দেশ থেকে যে অল্প পরিমাণ মাটি সঙ্গে নিয়ে এসেছি, তা আবার সেখানে নিয়ে যেতে চাই, যেখানে আমি বাস করি। যোগ করেন তিনি।