তালেবানকে আপন ভাইয়ের ভূমি দখল বন্ধ করতে হবে: এরদোগান

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগান বলেছেন, তালেবানকে ‘আপন ভাইয়ের ভূমি দখল’ বন্ধ করতে হবে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়ে বলেছে, প্রেসিডেন্ট এরদোগান সোমবার (১৯ জুলাই) উত্তর গ্রিস সফরে যাওয়ার আগে এক সংবাদ সম্মেলনে তালেবানের প্রতি এ আহ্বান জানান। তিনি বলেন, “তালেবানকে এই মুহূর্তে বিশ্ববাসীকে জানান দিতে হবে যে, তারা আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চায়।”

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর তুরস্ক কাবুল বিমাবন্দরের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব নেয়ার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়েছে তালেবান। তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেছেন, তিনি বিষয়টি নিয়ে তালেবানের সঙ্গে কথা বলতে চান।

এরদোগান আফগানিস্তানের চলমান সংঘাতের কথা উল্লেখ করে বলেন, এই যুদ্ধে তালেবান যে পন্থা অবলম্বন করছে তা এমন কোনো আচরণ নয় যা ‘একজন মুসলমান আরেকজন মুসলমানের সঙ্গে’ করে থাকে।

গতমাসে ব্রাসেলসে ন্যাটো জোটের শীর্ষ সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে কাবুল বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্ব গ্রহণ করতে অনুরোধ করেন।

পরবর্তীতে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, মার্কিন সেনারা চলে যাওয়ার পর তার দেশের সৈন্যরা কাবুল বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্ব গ্রহণ করবে এবং তারা ‘সর্বোৎকৃষ্ট পন্থায়’ এ দায়িত্ব পালন করবে। এরদোগানের এ বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করে তালেবান বলেছে, আফগানিস্তানে তুর্কি সেনা উপস্থিতিকে ‘দখলদারিত্ব অব্যাহত থাকা’ হিসেবে ধরে নেয়া হবে।

তালেবান এক বিবৃতিতে সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, “তুর্কি কর্মকর্তারা যদি বিষয়টি পুনর্বিবেচনা না করেন তাহলে আফগান জনগণ তাদের ঈমানি ও জাতীয়তাবাদী দায়িত্ববোধ থেকে তুর্কি বাহিনীর সঙ্গে এমন প্রতিরোধ গড়ে তুলবে যা তারা গত ২০ বছর ধরে দখলদার সেনাদের বিরুদ্ধে করে এসেছে।

এ সম্পর্কে সোমবার প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, তালেবানের বিবৃতির কোথাও এমন কথা নেই যেখানে বলা হয়েছে, “আমরা আফগানিস্তানে তুর্কি সেনা উপস্থিতি চাই না।

আফগান সরকার অবশ্য তুর্কি সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেছে, কাবুল বিমানবন্দরে তুরস্কের সেনা মোতায়েন থাকলে তারা তালেবান হামলা থেকে বিমানবন্দরটিকে রক্ষা করতে পারবে।

সূত্রঃ পার্সটুডে