তাজাকিস্তানের বিশাল ভূমি নিজেদের দাবি করলো চীন!

সীমান্তে ভারতের সাথে উত্তাপ কমেছে বেশিদিন হয়নি। এখনো চলছে চীন-ভারত ঠাণ্ডা কলহ। তবে ভারত, ভুটানের পর চীনের নজর এবার তাজাকিস্তানের দিকে।

চীনের ইতিহাসবিদ ইয়ো ইয়াও লু সম্প্রতি একটি প্রতিবেদনে লিখেছেন, একটা সময় পুরো পামির এলাকা চীনের ছিল। তাই এবার পামিরের পার্বত্য ভূমি চীনের ফেরত পাওয়া উচিত। তার এমন প্রতিবেদনের পর থেকেই চীনের সংবাদমাধ্যম এবার নজর দিয়েছে তাজাকিস্তানের দিকে।

মধ্য এশিয়ার ছোট ও গরীব দেশ তাজাকিস্তান। ২০১০ সালে চীন ও তাজাকিস্তানের মধ্যে সীমান্ত নিয়ে চুক্তি হয়েছিল। সেই চুক্তি অনুযায়ী চীনকে ১ হাজার ১৫৮ বর্গ কিলোমিটার জায়গায় দিয়ে দিতে হয়েছিল তাজাকিস্তানকে। চীন সেই চুক্তির পর তাজাকিস্তান ও আফগানিস্তান সীমান্তের কাছে তাশকুরগায় এয়ারপোর্ট নির্মাণের কাজও শুরু করে দিয়েছে। যা কিনা চিন্তায় বিষয়।

তবে মধ্যপ্রাচ্যে চীনের সাম্রাজ্য বিস্তারের দিকে নজর রেখেছে রাশিয়া। কারণ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলির উপর রাজনৈতিক আস্থা রয়েছে রাশিয়ার। তাছাড়া চীনের এই সাম্রাজ্যবাদী মনোভাবের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই রুখে দাঁড়িয়েছে রাশিয়া ও আমেরিকা।

জানা গেছে, ইতিহাসবিদ ইয়ো ইয়াও লু প্রতিবেদনে আরও লিখেছেন, ১৯১১ সাল থেকে চীন যে নীতি নিয়েছে তাতে হারানো জমি পুনর্দখলের কথা রয়েছে। এরই মধ্যে চীন বেশ কিছু হারানো জমি ফেরত পেয়েছে।

তবে আরও অনেক জমি পাওয়া বাকি। পামির বহু প্রাচীন একটি জায়গা। সেখানে সবার প্রথমে চীনের অধিকার ছিল। কিন্তু গত ১২৮ বছর ধরে পামিরের পার্বত্য অঞ্চল আর চীনের তত্ত্বাবধানে নেই। তাই এবার সেই অঞ্চল ফিরে পেতে চায় চীন।