ঢাবির ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মজনুর বিচার শুরু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্রী ধর্ষণ মামলার একমাত্র আসামি মজনুর বিরুদ্ধে চার্জ (অভিযোগ) গঠন করেছেন আদালত। আগামী ৯ সেপ্টেম্বর এ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে।

বুধবার ভার্চুয়াল শুনানি নিয়ে ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক বেগম মোসাম্মৎ কামরুন্নাহার এ আদেশ দেন। এর ফলে মজনুর বিরুদ্ধে মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার কাজ শুরু হল।

আদালত সূত্র জানায়, মামলার একমাত্র আসামি মজনু গ্রেফতারের পর থেকে কাশিমপুর কারাগারে বন্দি রয়েছে। বুধবার আদালতে তার পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। তবে মজনু ভার্চুয়াল মাধ্যমে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে আদালতের কাছে ন্যায়বিচার প্রার্থনা করেছেন।

এর আগে গত ১৬ আগস্ট এ মামলার চার্জশিট আমলে নিয়ে অভিযোগ গঠনের শুনানির জন্য আজকের (বুধবার) দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী রাজধানীর কুর্মিটোলা বাসস্ট্যান্ড থেকে ফুটপাত দিয়ে হেঁটে গলফ ক্লাবসংলগ্ন স্থানে পৌঁছান। এ সময় আসামি মজনু তাকে তুলে নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় ওই শিক্ষার্থীর বাবা ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন।

গত ৮ জানুয়ারি ক্যান্টনমেন্ট থানাধীন শেওড়া বাসস্ট্যান্ডে আসামি মজনুকে গ্রেফতার করে র্যা ব। এরপর আসামির স্বীকারোক্তি অনুসারে ওই ছাত্রীর ব্যাগ, মোবাইল ও পাওয়ার ব্যাংক এবং আসামির ব্যবহৃত একটি জিন্সের প্যান্ট ও একটি জ্যাকেট উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারের পর রিমান্ডে মজনু ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করার কথা স্বীকার করে। পরে ১৬ জানুয়ারি আদালতে সে এ বিষয়ে জবানবন্দিও দেয়। পুলিশ আদালতকে প্রতিবেদন দিয়ে বলেছে, আসামি মজনু একজন অভ্যাসগত ধর্ষক (সিরিয়াল রেপিস্ট)। প্রতিবন্ধী ও ভ্রাম্যমাণ নারীদের ধর্ষণ করে আসছিল সে।