ট্রেনের ভাড়া ছাড়িয়ে যাচ্ছে বিমানকেও

আবারও ভাড়া বাড়ছে ট্রেনের। প্রস্তাবিত ভাড়া প্রায় প্রতিটি রুটে সড়ক পথের ভাড়াকে তো ছাড়িয়েছেই, কোন কোন ক্ষেত্রে এসি কেবিনের ভাড়া আকাশ পথকেও ছাড়িয়ে গেছে। যোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি কার্যকর হলে মুখ থুবড়ে পড়বে রেল।

ঢাকা থেকে নীরফামারীর সৈয়দপুরে বিমানে পৌঁছাতে সময় লাগে ৪০-৪৫ মিনিট ভাড়া ২৫০০ থেকে ২৭০০ টাকা। রেলপথে পঞ্চগড়ে যেতে সময় লাগে ১০-১২ ঘন্টা আর এ পথে ট্রেনের এসি কেবিনের নতুন প্রস্তাবিত ভাড়া ধরা হয়েছে জনপ্রতি ২৬৯০ টাকা। একইভাবে ঢাকা থেকে চট্রগ্রাম, যশোর ও রাজশাহীর প্রস্তাবিত ট্রেন ভাড়া বিশ্লেষণ করে দেখা যায় প্রায় বিমানের সমপরিমান।

তেলের দাম, পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয় বৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে ভাড়া বাড়াচ্ছে রেলওয়ে, যেখানে শোভন চেয়ারে ২৫ আর এসি আসনে বাড়ছে ৮০ শতাংশ।

সাধারণ যাত্রীরা জানান, ট্রেনে ভাড়া বাড়ছে কিন্তু সেবার মান বাড়ছে না। সেই সাথে ভাড়া যদি বৃদ্ধি পায় তাহলে আমাদের জন্য খুবই কষ্টকর হবে।

 

প্রস্তাবিত ভাড়া চূড়ান্ত নয় উল্লেখ করে যাচাই বাছাই শেষে যৌাক্তিক হারে ভাড়া কার্যকর করা হবে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে।

 

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. শামসুজ্জামান বলেন, মন্ত্রণালয় এবং রেলওয়ে মিলে কমিটি হালনাগাদ করছে। অনেকগুলো অবজারভেশন আছে, সে সব অভজারভেশন দিয়ে আবার তারা বসবে। ভারতীয় রেলওয়ে বিদেশি রেলওয়ে যারা আছে তাদের সাথে কমপেয়ার করবে। এটা করতে অনেক সময় লাগবে।

যোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন ভাড়া কার্যকর হলে রেল থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে সাধারণ মানুষ। মুখ থুবড়ে পড়তে পারে রেল ব্যবস্থা।

যোগাযোগ বিশেষজ্ঞ বলেন, ভাড়া যদি ব্যাপক পরিমাণে বৃদ্ধি পায় তাহলে সাধারণ মানুষ বহন করতে পারবে না। কেননা এই বাহনটা কিন্তু সাধারণ মানুষের। এতে যাত্রী সংখ্যা কমে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

মালবাহী ট্রেনে ২৫ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধির সুপারিশ করা হয়েছে প্রস্তাবিত নতুন ভাড়ায়।