জিয়া একটি পুতুল সরকার বানিয়েছিলেন: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ.ম রেজাউল করিম বলেছেন, প্রেসিডেন্ট আবু সাদাত মোঃ সায়েমকে পিস্তল ঠেকিয়ে একটি পুতুল সরকার বানিয়ে ছিলেন জিয়া এবং পরবর্তীতে তিনি হলেন প্রধান আইন প্রশাসক ও ইউনিফর্ম অবস্থায় নিজেকে রাষ্ট্রপতি দাবি করলেন, এই হচ্ছে তৎকালীন জিয়াউর রহমানের নিষ্ঠুর শাসনামল।

শুধু তাই-ই নয়, বিভিন্ন দেশের ১২টি হাই কমিশনে খুনী ফারুক, ডালিম ও রশীদসহ অন্যদেরকে রাষ্ট্রদূত হিসেবে ডলার দিয়ে সাহায্য করে পাঠিয়ে দেয়া হল চাকরিতে। এরপরে জিয়া তৈরি করলেন বিএনপি নামক একটি দল।

১৯৭৯ সালে আর একটি পাতানো ও জালিয়াতিপূর্ণ নির্বাচন দেন ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ ভোটের মাধ্যমে। ভোটে জয়লাভ করে সংসদে কোনো আইন পাশ না করে শুধুমাত্র আলোচনার মাধ্যমে খন্দকার মোস্তাকের নামে অর্ডিন্যান্স জারি করা হয়েছিল।

পরে কালো আইন নামে অভিহীত ‘ইনডেমনিটি’ নিয়ে পার্লামেন্টে স্বর্গীয় অ্যাডভোকেট সুধাংশু শেখর হালদার, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত ও মিজানুর রহমান এটি সংসদে পাশ না করার জন্য আলোচনা করেন। কিন্তু বিএনপির এমপিরা আওয়ামী লীগের এমপিদের সে কথা শুনেননি।

মন্ত্রী শনিবার সকালে জুম ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে পিরোজপুর জেলা হিন্দু কল্যান ট্রাস্ট আয়োজিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে এসময় আরও বক্তব্য রাখেন ট্রাস্টের প্রকল্প পরিচালক, উপ সচিব, ট্রাস্টি সুরঞ্জিত দত্ত লিটু, জেলা পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমএ হাকিম হাওলাদার, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও সম্পাদকসহ, জেলা এপিডি প্রিয়াংকা সিকদার প্রমুখ।