জম্মু-কাশ্মিরের প্রখ্যাত আলেম ও মুফতি ফয়জুল ওয়াহেদের ইন্তেকাল

জম্মু ও কাশ্মিরের প্রখ্যাত আলেম ও মুফতি ফয়জুল ওয়াহেদ ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স ছিল ৫৬ বছর। গতকাল মঙ্গলবার (১ জুন) রাতে একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি মারা যান।

করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মুফতি ফয়জুল ওয়াহেদের জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। বিপুল সংখ্যক মুসল্লি উপস্থিত হওয়ায় ছোট ছোট দলে ৪০ বার জানাজার নামাজ পড়া হয়। বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় সংগঠন তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে।

মুফতি ফয়জুল ওয়াহেদ সর্বপ্রথম পবিত্র কোরআন গুজারি ভাষায় অনুবাদ করেন। চিকিত্সা ও প্রকৌশল বিষয়ে পড়াশোনার ক্ষেত্রে জম্মু ও কাশ্মিরের আদিবাসী ও উপজাতি শিক্ষার্থীদের সহায়তার জন্য তিনি সবার কাছে পরিচিত ছিলেন।

মুফতি ফয়জুল ওয়াহেদ জম্মু কাশ্মিরের রাজৌরি জেলার দুদসনবালার থানামানদি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। স্থানীয় স্কুলে মেট্রিক পর্যন্ত পড়েন। ১৯৭৮ সালে তিনি মুজাফফর নগরের মাদরাসা তালিমুল কোরআনে ভর্তি হন। এরপর হাপুরে মাদরাসা খাদিমুল ইসলামে ভর্তি হন। ১৯৮৫ সালে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দে ভর্তি হন। ১৯৯২ সালে ইসলামী আইন বিষয় পড়াশোনা সম্পন্ন করে তিনি আগ্রায় ড. ভিমরাও আমবেদকর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উর্দু ভাষায় স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

মুফতি ফয়জুল ওয়াহেদ জম্মু ও কাশ্মিরে অনেক মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেন। ছাত্রদের জন্য ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি আধুনিকা শিক্ষার ব্যবস্থা করেন। আদিবাসীদের শিক্ষা ও সামাজিক উন্নয়নে ভূমিকা পালন করেন। দরিদ্র শিক্ষার্থীদের ব্যয়ভার বহন করতেন। তাই সবার কাছে অত্যন্ত শ্রদ্ধা ও প্রিয়পাত্র হিসেবে স্থান করে নেন।

জম্মু ও কাশ্মির প্রদেশ কংগ্রেস কমিটির সভাপতি জিকে মির প্রয়াত আলেমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে এ মহান ব্যক্তিত্বের মৃত্যুকে তিনি ‘অপূরণীয় ক্ষতি’ বলে আখ্যায়িত করেন। তিনি একজন বিদ্বান ব্যক্তি ও শান্তি ও ধর্মীয় সম্প্রীতির জন্য সর্বদা কাজ করতেন বলে জানান দলটির মুখপাত্র রভিন্দ্র শর্মা।

জম্মু ও কাশ্মিরের আপনি পার্টির সভাপতি আলতাফ বুখারি শোক প্রকাশ করে বলেন, মহান ব্যক্তির মৃত্যু সমাজে অপূরণীয় শূণ্যতা তৈরি করেছে। তিনি সর্বদা সঠিক পন্থায় শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজের জন্য সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতেন।

সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস