‘চুক্তি বাতিল না করলে মুসলিম বিশ্ব আমিরাতকে বয়কট করবে’

অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সঙ্গে আরব আমিরাতের চুক্তির ফলে মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে দ্বিধাভক্তি সৃষ্টি হচ্ছে। মুসলিম বিশ্বের এ দ্বিধাবিভক্তি যুদ্ধের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

এছাড়া এ চুক্তির মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে বিশ্বাস ঘাতকতা করা হয়েছে। তাই অবিলম্বে এ চুক্তি বাতিল করতে হবে।

শনিবার ইসরাইল এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে চুক্তি বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশে এসব কথা বলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম।

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে সংগঠনটির ঢাকা মহানগর আয়োজিত বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ চুক্তি মুসলিম দেশগুলোতে অশান্তির আগুন জ্বালিয়ে দিবে মন্তব্য করে ফয়জুল করীম বলেন, কয়েকটি আরব দেশ নিজেদের ক্ষমতাকে পাকাপোক্ত করতে আল্লাহর দুশমনদের সঙ্গে চুক্তি করছে।

ইসরাইলের হাতে হাজার হাজার ফিলিস্তিনি মা-বোন, শিশু হত্যার শিকার হচ্ছে। তাদের হাত মুসলিমদের রক্তে রঞ্জিত। অভিশপ্ত ইসরাইলের সঙ্গে কোনো চুক্তি মুসলমান করতে পারে না।

তিনি বলেন, সৌদীসহ অনেক আরবদেশে ইসলামী সংস্কৃতি ধ্বংস করে ইসলাম ও মুসলিমবিরোধী সংস্কৃতি চালু করছে। এ চুক্তি বাতিল না হলে মুসলিম উম্মাহ আরব আমিরাতসহ তাঁবেদার আরবদেশগুলোর বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতে বাধ্য হবে।

ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ ইমতিয়াজ।

আরও বক্তব্য রাখেন মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, ছাত্রনেতা এম হাছিবুল ইসলাম, মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাকী, নুরুল ইসলাম নাঈম, হুমায়ুন কবির, এইচ এম সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, ইসরাইল-আমিরাতের চুক্তি মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ে চরম আঘাত। আমিরাতকে বয়কটের মধ্য দিয়ে এ চুক্তি থেকে ফিরিয়ে আনতে হবে। তিনি সরকারকে এর বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব জ্ঞাপনের দাবি জানান।

সমাবেশ শেষে একটি মিছিল প্রেসক্লাব, কদম ফোয়ারা হয়ে পল্টন মোড় এসে শেষ হয়।