চুক্তির মেয়াদ শেষ আইএইএ আর কোনো তথ্য পাবে না: স্পিকার

ইরানের পার্লামেন্ট স্পিকার মোহাম্মাদ বাকের কলিবফ বলেছেন, আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা বা আইএইএ’র সঙ্গে তার দেশের নজরদারি বিষয়ক সাময়িক চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় সংস্থাটিকে ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোর আর কোনো ছবি বা তথ্য সরবরাহ করা হবে না।

তিনি গতকাল (রোববার) পার্লামেন্ট অধিবেশনে দেয়া বক্তব্যে বলেন, “আইএইএ’র সঙ্গে যে তিন মাসের সাময়িক চুক্তি হয়েছিল তা নবায়ন করা হয়নি। কাজেই তিন মাস মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পর ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোতে বসানো ক্যামেরাগুলোর কোনো ছবি বা ভিডিও চিত্র বা অন্য কোনো তথ্য আইএইএ পাবে না। এসব ছবি ও তথ্য ইরানের কাছে সংরক্ষিত থাকবে।”

ইরানের পার্লামেন্টে পাস হওয়া এক আইন অনুযায়ী এদেশের আণবিক শক্তি সংস্থা গত ফেব্রুয়ারি মাসে আইএইএ’কে ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোর ওপর নজরদারি করতে দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এ অবস্থায় আইএইএ’র মহাপরিচালক তেহরানে ছুটে আসেন এবং ইরানি কর্মকর্তাদেরকে অনুরোধ করে তিন মাসের জন্য একটি চুক্তি করেন।

এর আগে শনিবার আইএইএ’তে নিযুক্ত ইরানের স্থায়ী প্রতিনিধি কাজেম গরিবাবাদি বলেছিলেন, তার দেশের পরমাণু স্থাপনাগুলোতে আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা বা আইএইএ’র নজরদারি অব্যাহত রাখার ব্যাপারে সাময়িক চুক্তির মেয়াদ নবায়ন করতে তেহরান বাধ্য নয়। ইরান আইএইএ’র সম্পূরক প্রটোকল বাস্তবায়ন বন্ধ করে দেয়ার পর ওই সাময়িক চুক্তি অনুযায়ী জাতিসংঘের ওই সংস্থাটি ইরানের পরমাণু স্থাপনাগুলোতে নজরদারি করে যাচ্ছিল। চুক্তিটির মেয়াদ দু’দিন আগে শেষ হয়ে গেছে।

ইরান বলছে, আমেরিকা তেহরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে পরমাণু সমঝোতায় ফিরে এলে পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের এ সংক্রান্ত অচলাবস্থার অবসান হবে। সেক্ষেত্রে আইএইএ’র সঙ্গে তেহরানের সহযোগিতা অব্যাহত রাখারও সুযোগ তৈরি হবে। কিন্তু যতক্ষণ তা না হচ্ছে ততক্ষণ আইএইএ’কে স্বেচ্ছায় কোনো সহযোগিতা করবে না ইরান।

সূত্রঃ পার্সটুডে