ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ে যুক্তরাষ্ট্রকে চ্যালেঞ্জ চীনের

দক্ষিণ চীন সাগরের বিতর্কিত অঞ্চল ঘিরে উত্তেজনা ক্রমে বাড়ছে। এরই মাঝে সামরিক শক্তি চেখে দেখতে ওই বিতর্কিত এলাকার দিকে দু’‌টি শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ে দিলো চীন।‌

সামরিক অভিযানের অংশ হিসেবে কিংঘাই প্রদেশ থেকে বিধ্বংসী ডিএফ ২৬বি এবং জেজিয়াং প্রদেশ থেকে মাঝারি রেঞ্জের ব্যালিস্টিক মিসাইল ডিএফ ২১ডি নিক্ষেপ করে পরীক্ষা চালানো হয়, বৃহস্পতিবার জানায়, চীনা সংবাদপত্র । হাইনান প্রদেশ ও প্যারাসেল দ্বীপপুঞ্জের মাঝামাঝি এলাকায় ওই দু’‌টি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়। যদিও আসল নিশানা ছিল আমেরিকা!

কারণ‌ বেইজিং–এর নৌসেনা বিশেষজ্ঞ লাই জি বলছেন, ‌‘‌সামরিক শক্তির পরীক্ষাই ছিল মূল লক্ষ্য। কিন্তু সম্প্রতি দক্ষিণ চীন সাগরে নৌবহর মোতায়েন করে উত্তেজনা বাড়িয়েছে আমেরিকা। সে দিক দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য সতর্কবার্তা বলা যেতে পারে।’‌

কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে পেন্টাগনও। মার্কিন প্রতিরক্ষা প্রধান মার্ক এসপার বলেন,‌ ‘‌প্রতি পদক্ষেপে আন্তর্জাতিক আইন ভাঙছে বেইজিং। কোনো দেশ নিজেকে বেশি শক্তিশালী মনে করলেও এক ইঞ্চি জমি ছেড়ে দেবে না আমেরিকা। যেসব এলাকায় স্বার্থ জড়িয়ে আছে, সেখানেই সামরিক বহর বাড়িয়ে সেনা মোতয়েন করে আগ্রাসী হয়ে উঠছে চীন।’

গত জুলাই মাসেই দক্ষিণ চীন সাগরে সামরিকা মহড়া চালিয়েছিল আমেরিকাও। মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের দাবি, ‘‌বিতর্কিত অঞ্চলে উত্তেজনা কম করতে এবং স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে সামরিক মহড়া চালিয়েছে আমেরিকা।’‌

সেবারও কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল চীন। চলতি সপ্তাহে বোহাই নদীর উত্তর উপকূলে চীনের সামরিক মহড়া চলার সময়ে হঠাৎ করে ঢুকে পড়ে দু’‌টি মার্কিনি চর–বিমান, চীনা সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর। পাল্টা হুঙ্কারে বেইজিং জানায়, আমেরিকার সুরে চীন নাচবে না। সমস্যা তৈরি করতে এলে বাধা দেবে বেইজিং।’‌

সূত্র : আজকাল