কুমিল্লায় স্বাক্ষর জালিয়াতি ও দুর্নীতির অভিযোগে প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার চরগোয়ালী খন্দকার নাজির আহমেদ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণবকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক বুলবুল আহমেদকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

রবিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এম এম মুশফিকুর রহমান। তার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মুশফিকুর রহমান জানান, বিদ্যালয়ের সভাপতির স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ২০২০ সালের বৈশাখী ভাতা এবং মার্চ, এপ্রিল ও মে মাসের সরকারি বেতন উত্তোলন করেন প্রধান শিক্ষক। বিষয়টি জনতা ব্যাংক দাউদকান্দি শাখার ব্যবস্থাপকের প্রতিবেদনে প্রমাণিত হয়। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারও তার প্রতিবেদনে স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগ সত্য বলে জানান। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রতিবেদনেও বিষয়টি প্রমাণিত হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ২০১৯ সালের ১০ ডিসেম্বর বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অর্থ উপকমিটির অডিট রিপোর্টে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের আয়ের টাকা ব্যাংক হিসাবে জমা না করে আত্মসাতের অভিযোগ করা হয়। প্রায় ৬০ লাখ টাকার অনিয়মের কোনো জবাব দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণব দিতে পারেননি। তাই ম্যানেজিং কমিটির সভায় সব সদস্যের মতামতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

অভিযুক্ত দেবেন্দ্র চন্দ্র বৈষ্ণব বলেন, আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ বানোয়াট। বরখাস্তের কোনো কাগজ পাইনি। বোর্ডের নির্দেশনা ছাড়া ম্যানেজিং কমিটি প্রধান শিক্ষককে বরখাস্ত করতে পারেন না।