কিপিং ভাগাভাগি নিয়ে দলে অস্থিরতা নেই : মাহমুদউল্লাহ

বাংলাদেশ দলে উইকেটকিপিং নিয়ে নাটক চলছে বেশ অনেকদিন ধরেই। মুশফিকুর রহিম কিপিং ছাড়তে রাজি নন। তার ব্যাটিং নিয়ে কথা না থাকলেও কিপিং নিয়ে সমালোচনা আছে। অন্যদিকে তার বিকল্প পছন্দ হিসেবে দলে আছেন লিটন দাস, নুরুল হাসান সোহানরা। সমস্যা সমাধানে গতকাল এক অদ্ভুত সমাধান দেন বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। কাল থেকে শুরু হতে চলা নিউজিল্যান্ড সিরিজে দুই ম্যাচ করে কিপিং ভাগাভাগি করবেন মুশফিক আর সোহান!

এই অদ্ভুত সমাধান নিয়ে দেশের ক্রিকেটাঙ্গনে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। আজ মঙ্গলবার সিরিজপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল দলের ওপর এই সিদ্ধান্তের প্রভাব নিয়ে। জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রভাবের কিছু নাই।

আসলে মুশফিক একজন টিম ম্যান। অসাধারণ টিম ম্যান। সে অবশ্যই তার কিপিং ভাগাভাগি করতে পেরে খুশি হয়েছে। সোহানও খুব খুশি। আমি মনে করি, সোহান খুবই ভালো কিপিং করে, আর মুশফিক তো দুর্দান্ত। তাদের এই দায়িত্ব ভাগাভাগি করে নেওয়া আমাদের দলের জন্য ভালো হবে বলে আমি মনে করি।

লিটন দাস এখন সাদা পোশাকে নিয়মিত কিপিং করে যাচ্ছেন। আর জিম্বাবুয়ে সফর এবং অস্ট্রেলিয়া সিরিজে মুশফিকের অনুপস্থিতিতে রঙিন পোশাকে দুর্দান্ত কিপিং করেছেন সোহান। কিপিংয়ের পাশাপাশি সতীর্থদের উজ্জীবিত করার কাজটিও সবার নজর কেড়েছে।

তাই মুশফিককে এখন ভাগাভাগি করতেই হচ্ছে। ৮৬ ম্যাচের আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে মাত্র ৪ ম্যাচে মুশফিক কিপিং করেননি। অন্যদিকে ২৩টি আন্তর্জাতিক ম্যাচের সবকটিতে সোহান কিপিং করেছেন। কিছুদিন আগেও অবশ্য এই চিত্র ছিল অকল্পনীয়।