করোনার নেগেটিভ সনদ নিয়ে ঢাকা ছাড়লেন ৩৯৬ বাংলাদেশি

সরকার নির্ধারিত কেন্দ্রগুলো থেকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরীক্ষার সনদ নিয়ে প্রথমবারের মতো বিদেশে যাত্রা করলেন ৩৯৬ বাংলাদেশি।

কাতার ও টার্কিশ এয়ারলাইন্সের পৃথক দুটি ফ্লাইটে বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকা ছাড়েন তারা। তবে নির্ধারিত কেন্দ্রের বাইরে থেকে সনদ নেয়ায় বেশ কয়েকজনকে ফ্লাইটে উঠতে দেয়া হয়নি।

এদিকে চট্টগ্রাম থেকে আজ (শুক্রবার) নির্ধারিত একটি ফ্লাইটে দুই শতাধিক যাত্রীর বিদেশে যাওয়ার কথা রয়েছে। তবে তাদের মধ্যে ৮ জনের করোনা পরীক্ষায় রিপোর্ট পজিটিভ আসায় তারা যেতে পারছেন না।

করোনা পরীক্ষা নিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ ওঠার পর বিদেশ যাত্রার ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করে বাংলাদেশ সরকার।

সেই নির্দেশনা অনুযায়ী আন্তর্জাতিক গন্তব্যে প্রথম ফ্লাইট ছিল বৃহস্পতিবার রাতে। শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাই যাত্রীদের জন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে কঠোর কড়াকড়ি। বিদেশযাত্রায় সরকার নির্ধারিত কেন্দ্রগুলো থেকে করোনা পরীক্ষার সনদ নেয়ার বাধ্যবাধকতার প্রথম দিনে সে বিষয়ে কঠোর অবস্থানে ছিল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও।

সম্প্রতি ইতালিতে বাংলাদেশিদের ভুয়া সনদ কেলেঙ্কারি অনিশ্চয়তায় ফেলেছিল হাজারো বিদেশগামী বাংলাদেশিদের। পরিস্থিতির উন্নয়নে নির্দিষ্ট ১৬টি কেন্দ্র থেকে বিদেশগামীদের জন্য সনদ সংগ্রহ বাধ্যতামূলক করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সেই নির্দেশনা মেনে প্রথমবারের মতো বৃহস্পতিবার রাতে কাতার ও টার্কিশ এয়ারলাইন্সের আলাদা দু’টি ফ্লাইটে ঢাকা ছাড়েন ৩৯৬ জন যাত্রী।

তবে নির্ধারিত কেন্দ্রের বাইরে থেকে সনদ সংগ্রহ করাসহ নানা কারণে কর্তৃপক্ষের বাধায় দুই ফ্লাইটে ৩৪ জন যাত্রীকে ইমিগ্রেশন পার হতে দেয়া হয়নি।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।