করোনার উৎস খুঁজতে চীনে প্রাথমিক তদন্ত শেষ করেছে :বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি দল যারা চীনের উহানে অবস্থান করছেন কোভিড-১৯’র উৎস খুঁজে বের করতে; তারা তাদের তদন্ত কাজ শেষ করেছেন। এজন্য তারা চীনের বিজ্ঞানীদের সঙ্গে বিশদ আলোচনা করেছেন।

মঙ্গলবার (০৪ আগস্ট) এ তথ্য জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মুখপাত্র ক্রিশ্চিয়ান লিন্ডমিয়ার। এই তদন্ত দলের প্রতিবেদনের জন্য বিশ্বের প্রতিটি দেশই গভীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছে বলেও জানান তিনি।

তবে তিনি মনে করেন যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রহ কম হতে পারে। কারণ, ট্রাম্প প্রশাসন ডব্লিউএইচও-কে চীনের ‘কাছের’ হিসেবে অভিযোগ তুলেছে এবং এই জোট থেকে সরে যাওয়ার পরিকল্পনাও করে।

তদন্ত প্রতিনিধি দল চীনের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করে মহামারির অগ্রগতি সম্পর্কে জেনেছেন, প্রাণী গবেষণার জৈবিক এবং জেনেটিক বিশ্লেষণ নিয়েও তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেছে। গত মাসের প্রথম দিকে এই দলটি চীনের উহান পৌঁছান।

লিন্ডিয়ার জানান, বিশদ এই আলোচনার মধ্যে প্রাণী স্বাস্থ্যের গবেষণায় অগ্রগতির বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত ছিল। করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর উহানের একটি বন্যপ্রাণীর বাজারের কয়েক ক্রেতা-বিক্রেতা করোনায় সনাক্ত হওয়ার পরদিনই ওই বাজার বন্ধ করে দেয়া হয়। বেশি সম্ভব এটি বাদুর থেকেই এসেছে বলেও মনে করছে ডব্লিউএইচও।

বড় তদন্ত দলের চীনে যাওয়ার আগে গঠিত এবারের প্রতিনিধি দলে ছিলেন প্রাণী স্বাস্থ্য ও মহামারি বিশেষজ্ঞ দুইজন। বড় দলটি কবে কবে চীনে যাবে ও কাদের সমন্বয়ে গঠন করা হয়েছে সে ব্যাপারে বিস্তারিত জানাননি ক্রিশ্চিয়ান লিনডমিয়ার। চীন ও আনতর্জাতিক পর্যায়ের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে গঠিত ওই বড় দলটি কিভাবে কোভিড-১৯ এল এবং এই প্রজাতিটি কিভাবে মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হল তা খতিয়ে দেখবে।

তবে, মার্কিন প্রতিনিধি ব্যতিত বড় পরিসরের এই তদন্ত দল গঠন খুবই স্পর্শকাতর ইস্যু হয়ে উঠবে। এবং বেইজিংয়ের অনুমতি পাওয়ার বিষয়ও একটি বড় প্রশ্ন।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বেশ আগেই বলছেন, এই জীবানুটি উহানের একটি গবেষণাগার থেকে এসেছে। যদিও এই দাবির পক্ষে জোড়াল কোন প্রমাণ তারা দিতে পারেনি। এবং চীন এটি অস্বীকারও করেছে।

ডব্লিউএইচও জরুরি বিভাগের প্রধান মাইক রায়ান গত সোমবার (৩ আগস্ট) বলেন, অবাক করার বিষয় সেখানে থাকার সম্ভাবনা ছিল। উহান থেকে এটি ছড়িয়ে পড়েছে বলে এর মানে এই নয় যে এটি উহান থেকেই উৎপত্তি হয়েছে।

গেল বছরের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের উহান শহর থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) পর্যন্ত এই ভাইরাসে ১ কোটি ৮৫ লাখ ৩৯ হাজার ৫২৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন আর মৃত্যু হয়েছে প্রায় ৭ লাখ মানুষের।