একরামুল কবিরকে দল থেকে বহিস্কার না করা হলে কর্মসূচি চলবে: ওবায়দুল কাদেরের ভাই

নোয়াখারী-৪ আসনের এমপি একরামুল কবির চৌধুরীকে দল থেকে বহিস্কার না করা পর্যন্ত লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি চলবে বলে জানিয়েছেন বসুরহাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। শুক্রবার (২২ জানুয়ারি) থেকে এ লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি শুরু করেছেন।

এর আগে, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরী আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে কথা বলার হুমকি দিয়েছেন এবং ওবায়দুল কাদেরের পরিবারকে রাজাকারের পরিবার বলে আখ্যায়িত করেছেন তিনি। একই সঙ্গে আগামী কিছুদিনের মধ্যে তিনি এসব নিয়ে কথা বলা শুরু করবেন বলে হুমকি দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ভিডিও আপলোড করেছেন।

বৃহস্পতিবার (২১ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ১২টা ১০ মিনিটের সময় নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক আইডি থেকে ফেসবুক লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন। যদিও ইতোমধ্যে একরামুল করিম চৌধুরীর এ বক্তব্যের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। ২৭ সেকেন্ডের এই ভিডিয়ো ক্লিপে তিনি বলেন, ‘দেশি মানুষ, স্লামালাইকুম।

আমি কথা বললে তো মির্জা কাদেরের বিরুদ্ধে কথা বলব না, আমি কথা বলব ওবায়দুল কাদেরের বিরুদ্ধে। একটা রাজাকার ফ্যামিলির লোক এই পর্যায়ে আসছে তার ভাইকে শাসন করতে পারে না। এগুলো নিয়ে আমি আগামী কয়েকদিনের মধ্যে কথা বলব। আমার যদি জেলা কমিটি না আসে তাহলে আমি এটা নিয়ে শুরু করব।

পরবর্তীকালে তার ফেসবুক আইডি ঘুরে দেখা যায়, তাৎক্ষণিক তিনি নিজের ফেসবুক আইডি থেকে লাইভ ভিডিয়োটি সরিয়ে নেন। এর আগেই কয়েক মিনিটের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার ভিডিয়ো বক্তব্যটি ভাইরাল হয়ে যায়।

একরামুল করিম চৌধুরী এমপির মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ভিডিয়ো সরিয়ে নিলেও তিনি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পরিবারের বিরুদ্ধে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা সত্য এবং তিনি সত্য কথা বলেছেন। নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের এই সাধারণ সম্পাদকের মতে, আপনারা গণমাধ্যম কর্মীরা খবর নিলে জানতে পারবেন তার পরিবারে কারা রাজাকার ছিল।

তবে ওবায়দুল কাদের এমপি একজন মুক্তিযোদ্ধা। দীর্ঘদিন থেকে তার ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা বিভিন্ন পর্যায়ের আওয়ামী লীগ নেতাদের নিয়ে এলোমেলো বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু তিনি তার ভাইকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না, এ জন্য তিনি এসব কথা বলেছেন।