ইরানের ভালো বন্ধু হতে চায় পাকিস্তান

গত কয়েক বছর যাবত ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান এবং দক্ষিণ এশিয়ার মুসলিম রাষ্ট্র পাকিস্তানের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। যার ধারাবাহিকতায় পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ইসলামাবাদের সঙ্গে তেহরানের এমন সম্পর্কে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেছিলেন, মুসলিম রাষ্ট্র দুটির মধ্যে দ্বিপক্ষীয় এ সম্পর্ক আরও উন্নত করা জরুরি। কেননা পাকিস্তান সবসময়ই ইরানের ভালো বন্ধু হতে চায়।

ইমরান খান বলেছেন, গত দু’বছর যাবত পাকিস্তান প্রতিবেশী দেশগুলোসহ আন্তর্জাতিক বিশ্বের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নত করছে। পাকিস্তানের টেলিভিশন চ্যানেল কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ইমরান খান ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদারের কথা বলেছেন।

মধ্যপ্রাচ্যের অন্য দেশগুলোর সঙ্গে বিশেষ করে সৌদি আরব ও তুরস্কের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ অঞ্চলের উত্তেজনা কমানোর ক্ষেত্রে পাকিস্তান ভূমিকা রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

 

ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যকার উত্তেজনার মধ্যে ইমরান খান গত এপ্রিল মাসে তেহরান সফর করেছিলেন এবং সে সময় তিনি ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আল-খামেনি এবং প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে বৈঠক করেন।

 

তখন পাকিস্তানের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, ইরান ও সৌদি আরবের মধ্যকার উত্তেজনা কমানোর লক্ষ্য নিয়ে ইমরান খান মধ্যস্থতার ভূমিকায় নেমেছেন। ইমরান খানের সফরকে তেহরান স্বাগত জানায়। সে সময় তিনি সৌদি আরবও সফর করেন।

 

চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ইমরান খান ইরানের নগর ব্যবস্থাপনা বিশেষ করে রাজধানী তেহরানের উন্নয়নের প্রশংসা করেন। তিনি বলেছেন, পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ইরান এক্ষেত্রে যে নজির স্থাপন করেছে তাতে লাহোর ও করাচি শহরের জন্য তা মডেল হতে পারে।