ইরানি যাত্রীবাহী বিমান হয়রানি নিয়ে মিথ্যা বলছে সেন্টকম

লেবাননের রাজধানী বৈরুতগামী ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের একটি যাত্রীবাহী বিমানকে হয়রানির ব্যাপারে মার্কিন সামরিক বাহিনীর কেন্দ্রীয় কমান্ড বা সেন্টকমের মুখপাত্র বিল আরবান যে দাবি করেছেন তাকে মিথ্যা বলে অভিহিত করেছে ইরানের বার্তা সংস্থা ’।

এই ঘটনার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ একটি সূত্রের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে নূর নিউজ বলেছে, ইরানের যাত্রীবাহী বিমানের কাছে আমেরিকার জঙ্গিবিমান যে মহড়া চালিয়েছে তা কোনো রুটিন এয়ার মিশন ছিল না। ইরানের যাত্রীবাহী বিমান হয়রানি করার জন্যই মার্কিন সামরিক বাহিনী এ কাজ করেছে বলে বার্তা সংস্থাটি জানিয়েছে।

গতকাল (শুক্রবার) নূর নিউজ বলেছে, মার্কিন জঙ্গিবিমানগুলো আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ইরানি যাত্রীবাহী বিমানকে বাধা দিয়েছে এবং ইরানি বিমানের একেবারে কাছাকাছি চলে আসে মার্কিন জঙ্গিবিমানগুলো।

সূত্র বলছে, যখন ইরানি যাত্রীবাহী বিমান বৈরুত বিমানবন্দরে নামার জন্য এগিয়ে যাচ্ছিল তখন মার্কিন এফ-১৫ বিমানগুলো লেবাননের আকাশসীমা লঙ্ঘন করে ইরানি বিমানকে হয়রানি করে।

নূর নিউজ বলছে, বৃহস্পতিবার রাতে মার্কিন জঙ্গিবিমানগুলো সিরিয়ার ভেতরে অবৈধভাবে বিপজ্জনক মহড়া চালায়। এ সময় ইরানি বিমানের পাইলট মার্কিন বিমানগুলোকে বারবার সতর্ক সংকেত দেন কিন্তু মার্কিন জঙ্গিবিমানগুলো ইরানি পাইলটের সতর্ক সংকেত উপেক্ষা করেন।

তেহরান থেকে মহান এয়ারলাইন্সের একটি বিমান উড্ডয়ন করে সিরিয়া হয়ে লেবাননের রাজধানী বৈরুতে যাওয়ার পথে মার্কিন বিমানের বাধার মুখে পড়ে।

সিরিয়ার আল-তানফ অঞ্চলে মার্কিন বিমান ইরানি যাত্রীবাহী বিমানকে হয়রানি করে। এ ব্যাপারে সেন্ট কম দাবি করেছে, মার্কিন নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক জোটের সেনাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে তাদের একটি এফ-১৫ বিমান ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী ভিজুয়াল ইনস্পেকশন চালিয়েছে।