ইমরান খানের বিরুদ্ধে ভারতের গোয়েন্দাবৃত্তি: জাতিসংঘের তদন্ত চায় পাকিস্তান

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে ইহুদিবাদী ইসরাইলের তৈরি করা পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে ভারত গোয়েন্দাবৃত্তি চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ইসলামাবাদ। পাশাপাশি বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিশ্বের যে ৫০ হাজারের বেশি ফোন হ্যাক করে গোয়েন্দাবৃত্তি চালানো হয়েছে সে তালিকায় ইমরান খানের ফোন নাম্বার রয়েছে। ইসরাইলের এনএসও কোম্পানি এই অবৈধ স্পাইওয়্যার তৈরি করেছে এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কাছে ছড়িয়ে দিয়েছে।

গত রোববার বিশ্বের ১৭টি গণমাধ্যম ইসরাইলি স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে বিশ্বের হাজার হাজার মানুষের ফোনে আড়িপাতা হয়েছে বলে খবর দিয়েছে।

গতকাল (শুক্রবার) পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ভারতীয় গোয়েন্দারা ব্যাপকভাবে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ওপর গুপ্তচরবৃত্তি চালিয়েছে যা সুস্পষ্টভাবে রাষ্ট্রীয় রীতি-নীতির লঙ্ঘন। পাক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, ইমরান খানের ওপর ভারতীয় গোয়েন্দাবৃত্তির যে রিপোর্ট প্রকাশ হয়েছে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে বিষয়টি তদন্ত করতে হবে, সত্য প্রকাশ করতে হবে এবং এর সাথে যারা জড়িত তাদেরকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে।

পাক পররাষ্ট্র দপ্তর তাদের বিবৃতিতে আরো বলেছে, “ভারত সরকার একই কৌশল দীর্ঘদিন ধরে কাশ্মীরের জনগণের বিরুদ্ধে ব্যবহার করে আসছে। বিষয়টি আমরা ঘনিষ্ঠভাবে পর্যবেক্ষণ করছি এবং সঠিক সময়ে যথাযথ প্লাটফর্মে বিষয়টি আমরা উত্থাপন করবো।”

এরইমধ্যে ভারত সরকার অভ্যন্তরীণভাবে মারাত্মক চাপের মুখে পড়েছে। বলা হচ্ছে- ভারতের প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেসের নেতা রাহুল গান্ধীর ওপর ভারত সরকার পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যবহার করে গুপ্তচরবৃত্তি চালিয়েছে। এই খবর ছড়িয়ে পড়ার পর ভারতের বিরোধীদলগুলো বিষয়টি তদন্ত করার দাবি জানাচ্ছে। এ নিয়ে দেশটির সংসদে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে।

সূত্রঃ পার্সটুডে