ইতিহাসে প্রথম জার্মানির মাটিতে নেমেছে ইসরায়েলি যুদ্ধবিমান

ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো জার্মানির মাটিতে নেমেছে ইসরায়েলি বিমানবাহিনীর ছয়টি যুদ্ধবিমান৷ মূলত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এবং মিউনিখ অলিম্পিক হামলায় নিহতদের শ্রদ্ধা জানানোর এক আয়োজনে অংশ নেবেন ইসরায়েলি সেনারা৷

গত বছর একই রকমের কার্যক্রমে অংশ নিতে ইসরায়েলে গিয়েছিল জার্মানির বিমানবাহিনীর বিমান৷ সোমবার ইসরায়েলের যুদ্ধবিমানগুলো ন্যোরভেনিচ বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করার পর এক টুইট বার্তায় জার্মান বিমানবাহিনী জানায়, ‘ছয়টি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে ব্লুউইংস২০২০ এবং মাগডেজ মহড়ায় অংশ নেবে৷’

১৯৭২ সালে জার্মানির মিউনিখে অলিম্পিক চলার সময় ১১ জন ইসরায়েলি অ্যাথলেটকে হত্যা করা হয়েছিল৷ মঙ্গলবার তাদের স্মরণে জার্মানি আর ইসরায়েলের যুদ্ধবিমান পাশাপাশি থেকে ফুয়ারস্টেনফেল্ডব্রুক বিমানঘাঁটির ওপরে উড়বে৷

জার্মানির বিমানবাহিনী আরো জানিয়েছে, ‘বিমানগুলো ফিরবে ডাখাউ-এর পাশ দিয়ে৷ তারপর জার্মান-ইসরায়েলি প্রতিনিধিদল হলোকস্টে নিহত এবং ‘জাতীয় সাম্যবাদী স্বৈরশাসনে’ নির্যাতিতদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন৷’

জার্মানির বিমানবাহিনীর পরিদর্শক লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইঙ্গো গেরহার্ৎস ইসরায়েল এবং জার্মান বিমানের এই যৌথ মহড়া সম্পর্কে বলেন, ‘ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো ইসরায়েলি বিমানবাহিনীর বিমানের পাশাপাশি জার্মান বিমানবাহিনীর বিমানের ওড়া আমাদের চলমান বন্ধুত্বের নিদর্শন৷’

তিনি আরো বলেন, হলোকস্টে যে নির্মম হত্যাযজ্ঞ চলেছিল, তার বিরুদ্ধে অবস্থান প্রকাশ করতে জার্মানিকে ইহুদি-বিদ্বেষের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে যেতে হবে৷